নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল বলেছেন, ‘আগামী ৩০ তারিখ দেশে যে নির্বাচন হতে যাচ্ছে, সেটি আসলে নির্বাচন নয়। একটি যুদ্ধ। এই যুদ্ধে বিএনপি ক্ষমতায় আসতে রাজাকারদের সাথে জোট বেধেছে। যারা এদেশের মানুষকে হত্যা করে, মা বোনদের ইজ্জ্বত কেড়ে নিয়েছে, তাদের দোসরদের হাতে তারা ধানের শীষ প্রতীক তুলে দিয়েছে। বিএনপি ক্ষমতায় এলে দেশে লাশের মিছিল বইবে। দেশ ধ্বংসস্তূপে পরিণত হবে। সিদ্ধান্ত আপনাদের, কাকে ভোট দিবেন। যারা দেশে উন্নয়ন ও শান্তি প্রতিষ্ঠায় কাজ করছে তাদেরকে, নাকী যারা ক্ষমতায় আসতে আগুনে মানুষ পুড়িয়ে মারে তাদেরকে।’

বহস্পতিবার বিকেলে শহরের নন্দীপাড়াস্থ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের সাবেক প্যানেল মেয়র ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর (১৩, ১৪, ১৫) শারমিন হাবীব বিন্নির কার্যালয়ে আয়োজিত উঠান বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন। আসন্ন নির্বাচনে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনে সেলিম ওসমানকে বিজয়ী করতে কাউন্সিলর শারমিন হাবীব বিন্নির সভাপতিত্বে আয়োজিত উঠান বৈঠকে অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা এহসানুল হাসান নিপু ও মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু।

হেলাল বলেন, ‘বিএনপি আমলে নারায়ণগঞ্জে ২৬ দিনে ২৭টি তাজা প্রাণ ঝড়েছে। তবুও আমরা নৌকার পথ থেকে পিছুপা হইনি। আমাদের শ্লোগান ছিল একটাই, জয় বাংলার শক্তি জবান দিয়ে, রক্ত দিয়ে রাজনীতি করে। আমদের কখনো পিছুপা হলে চলবে না। আগামী ৩০ তারিখ স্বাধীনতার পক্ষের শক্তিকে জয়ী করার মাধ্যমে সেটার প্রমাণ দিব ইনশাহ আল্লাহ।’

এহসানুল হাসান নিপু তার বক্তব্যে বলেন, ‘এই নির্বাচন একটি গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচন। আপনাদের বিবেক দিয়ে বিবেচনা করতে হবে কাকে আপনারা নির্বাচিত করতে চান। যারা ক্ষমতায় আসতে আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মারে সেই সরকার, নাকী দেশকে উন্নয়নের রুল মডেল প্রতিষ্ঠিত করেছে যে সরকার, সেই শেখ হাসিনার সরকার। সিদ্ধান্ত আপনাদের।’

নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু বলেন, ‘বিএনপি দেশদ্রোহীদের হাতে ধানের শীষ তুলে দিয়েছে। আমার ভাবতে লজ্জা লাগে, যেই পাকিস্তানী দোসররা একাত্তরে এদেশের মা বোনদের ইজ্জ্বত নিয়ে ছিনিমিনি খেলেছে, আজ তাদের পক্ষেই একটি দল ভোট চাইছে। সিদ্ধান্ত আপনাদের, বিবেককে প্রশ্ন করুন, কাকে ভোট দিবেন। স্বাধীনতার বিপক্ষের শক্তিকে! যারা এদেশের লাখো মানুষকে হত্যা করেছে। নাকী স্বাধীনতার স্বপক্ষের শক্তিকে, যারা এই দেশের উন্নয়নে রাত দিন পরিশ্রম করে যাচ্ছে।’

তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ,‘ যেখানে নৌকা নেই, সেখানেই লাঙ্গল।’ এই নির্দেশের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই আমাদের লাঙ্গলের প্রার্থী সেলিম ওসমানের পক্ষে কাজ করতে হবে। একেএম সেলিম ওসমান এমন একজন এমপি, যিনি উন্নয়নের স্বার্থে দলমত নির্বিশেষে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি একজন উন্নয়নবান্ধব সাংসদ। তাই সরকারের উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে আগামী নির্বাচনে সেলিম ওসমানকে বিজয়ী করতে হবে।’

সভাপতির বক্তব্যে কাউন্সিলর বিন্নি বলেন, ‘সারা দেশের ৩০০ আসনের মধ্যে সেলিম ওসমান একজন ব্যতিক্রমী ধরণের এমপি। যিনি নিজের পকেটের টাকা খরচ করে শিক্ষা ও চিকিৎসা ব্যবস্থার উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। মানুষের দারিদ্রতার কথা চিন্তা করে ঈদ, পূজোতে তিনি আর্থিক ভাবে সহায়তা করে যাচ্ছেন। এছাড়াও বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে তিনি নিজস্ব তহবিল থেকে সহযোগীতা করে যাচ্ছেন। উন্নয়নের প্রশ্নে তিনি কখনোই পিছুপা হননি। দলমত নির্বিশেষে সবাইকে পাশে রেখে কাজ করে যাচ্ছেন। এই উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আগামীতে এমন দানবীর এমপিকেই নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের জন্য নির্বাচিত করতে হবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘দলীয় প্রতীক নয়, নির্বাচনের দিন আপনারা আপনাদের বিবেক দিয়ে প্রার্থী নির্বাচিত করবেন। দেশকে ভালোবাসলে, মুক্তিযোদ্ধের স্বপক্ষের শক্তিকে ভালোবাসলে অবশ্যই সেলিম ওসমানের মতো একজন উন্নয়নবান্ধব সাংসদকে নির্বাচিত করবেন।’

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবলীগের প্রচার সম্পাদক আব্দুল কাদির, বিশিষ্ট সমাজ সেবক হামজা হাবীব মিশর প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here