নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জের চাষাঢ়ায় অবস্থিত তৈরী পোশাক রপ্তানীকারক প্রতিষ্ঠান ইউনাইটেড এ্যাপারেলসের শ্রমিকদের সমস্ত পাওনা বুঝিয়ে দিয়েছে মালিক পক্ষ। বিকেএমইএ ও শ্রমিক নেতা আলহাজ¦ কাউসার আহমেদ পলাশের মধ্যস্ততায় প্রতিষ্ঠানটিতে দীর্ঘদিন যাবত চলে আসা শ্রমিক অসন্তোষ এতে লাঘব হলো।
শুক্রবার (২৬ মে) শহরের বি.বি রোডে কারখানা প্রাঙ্গণে এই পাওনা পরিশোধ করা হয়।

এদিন ইউনাইটেড এ্যাপারেলসের ২৫০ জন শ্রমিককে সার্ভিস বেনিফিট ও বেতনসহ মোট ৩৫ লাখ টাকা পরিশোধ করে মালিক পক্ষ। এতে একজন শ্রমিক সর্বোচ্চ ৫৫ হাজার ও সর্বনি¤œ ৫ হাজার ৭ শত টাকা পায়।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন, প্রতিষ্ঠানের মালিক নাসিম উল তারেক শিমুল, একাউন্টস ম্যানেজার মনজুর মোরশেদ, শ্রমিক নেতা রফিকুল ইসলাম, মোজাম্মেল হোসেন প্রমূখ।

উল্লেখ্য, শ্রমিকদের গ্র্যাচ্যুইটি, নোটিশ পে, আর্ন লিভসহ যাবতীয় পাওনাদি যাতে না দিতে হয় সেজন্য গার্মেন্টসটির মালিকপক্ষ অভিনব কৌশল অবলম্বন করেছিলো। ইউনাইটেড এ্যাপারেলসের মালিকপক্ষ তাদের কারখানাটি শহরের চাষাঢ়া এলাকা থেকে মদনপুরের কেওঢালা এলাকায় স্থানান্তর করছে। চাষাঢ়া থেকে মদনপুর কেওঢালার দূরত্ব ২২ কিলোমিটার। কারখানাটিতে সাড়ে ৩শ’ শ্রমিক কাজ করছে যার মধ্যে নারী শ্রমিক প্রায় ৩শ’। কারখানাটিতে একেকজন শ্রমিক বহুবছর ধরেই কাজ করছে। শ্রম আইন অনুযায়ী কারখানাটিতে শ্রমিকরা গ্র্যাচ্যুইটি, নোটিশ পে, আর্ন লিভসহ বিভিন্ন খাত বাবদ বহু অর্থ পাওনা রয়েছে। কিন্তু মালিকপক্ষ শ্রমিকদের যাতে ওই বিপুল অংকের টাকা পরিশোধ করতে না হয় সেজন্য তারা অভিনব পন্থা অবলম্বন করেছে। তারা শ্রমিকদের নোটিশ দিয়েছিলো মদনপুরের কেওঢালাতে ওই নতুন কারখানায় যোগ দিতে। তারা শ্রমিকদের নতুন কারখানায় যাওয়ার জন্য একটি বাসের ব্যবস্থা করবে। কিন্তু শ্রম আইনে রয়েছে পুরাতন কারখানার থেকে নতুন কারখানার দূরত্ব ৪০ কিলোমিটার হলে সেক্ষেত্রে শ্রমিকরা যোগ দিতে বাধ্য থাকবে এবং সেক্ষেত্রে শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিলে মালিকপক্ষ তাদেরকে অন্যান্য পাওনাদি দিতে বাধ্য থাকবে না। তাই মালিকপক্ষ শ্রমিকদের পাওনাদি থেকে বঞ্চিত করার কৌশল হিসেবে যাতায়াতের জন্য গাড়ির কথা বলে।

এরপর বিশিষ্ট শ্রমিক নেতা কাউসার আহমেদ পলাশ শ্রমিকদের ন্যায্য পাওনা পরিশোধের জন্য কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারী দেন। তখন টনক নড়ে মালিক পক্ষ ও বিকেএমইএ’র এবং তারা শ্রমিকদের পাওনা পরিশোধের উদ্যোগ গ্রহন করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here