নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: সংসদ শামীম ওসমানের ধমক খেয়েও ক্ষান্ত হননি সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন আহম্মেদ। উপরন্তু ক্ষমতার দাপটে দিন কে দিন আরো বেপরোয়া হয়ে উঠছেন তিনি। যার দাপটে এবার ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের পাশে ১৫টির মত বড় বড় সরকারী গাছও দেদারছে কেটে ফেললেন তিনি।
তবে নাজিম উদ্দিন দাবী করেন এগুলো সরকারী নয়, একটি হাউজিং কোম্পানীর লাগানো গাছ গুলোই কেটেছেন তিনি। আর কেটে ফেলা গাছের পরিবর্তে এখানে ফলজ গাছ রোপন করবেন তিনি।

স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার (১১ অক্টোবর) সকাল ১০ টায় জেলা কৃষকলীগ সভাপতি নাজিম উদ্দিন নিজে উপস্থিত থেকে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিংক রোডের পাশে ভূইগড়ে অবস্থিত রূপায়ন হাউজিং এর পাশে প্রধান সড়কের ধারে থাকা বহু বছরের প্রায় ১৫ টি গাছ কেটে ফেলেন।

প্রকাশ্য দিনের বেলায় দেদারছে সরকারী গাছ কেটে ফেলায় নাজিম উদ্দিনের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেন স্থানীয়রা। অনেকে অভিযোগ করেন, এই রূপায়ন হাউজিংয়ে বসেই নাজিম উদ্দিন তার অপরাধ মূলক কর্মকান্ডের নিয়ন্ত্রণ করে থাকেন। যার ফলে দিনের বেলায় লিংক রোডের পাশে বড় বড় গাছ কেটে ফেললেও প্রশাসন ছিল নীরব। এমনকি সম্প্রতি কোরবানীর ঈদের সময়ও সাইনবোর্ড শান্তিধারা আবাসিক এলাকায় মহাসড়কের পাশে কোরবানীর হাট করার লক্ষ্যে সরকারী খাল বালু ফেলে ভরাট করে ফেলার পরেও সদর উপজেলা প্রশাসন কোন পদক্ষেপ নেননি।

এছাড়াও সাইনবোর্ড এলাকায় সরকারী জমি দখল করে শ্রমিক সংগঠনের নামে নাজিম উদ্দিনের গড়া অবৈধ কার্যালয় কয়েকবার সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নির্দেশে সওজ উচ্ছেদ করে দিলেও ফের ক্ষমতার বলে সেখানে অবৈধ কার্যালয় গড়ে তুলেন নাজিম উদ্দিন।

স্থানীয়দের অভিযোগ সাংসদ শামীম ওসমানের ছায়াতলে থেকে একের পর এক অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছেন নাজিম উদ্দিন। তাই সময় থাকতেই যদি সাংসদ নাজিম উদ্দিনের ব্যাপারে কঠোর না হন তাহলে আগামী নির্বাচনে এর খেসারতও তাকে দিতে হবে বলে হুঁশিয়ার করেন স্থানীয়রা।

এদিকে, প্রকাশ্য দিবালোকে সড়কের পাশে থাকা সরকারী গাছ নাজিম উদ্দিনের কেটে ফেলা প্রসঙ্গে জানতে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাসনিম জেবিন বিনতে শেখ’র সাথে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও অফিসে গোপন বৈঠকে ব্যস্ত থাকায় তিনি মুঠোফোন রিসিভ করতে পারছেন না বলে এই প্রতিবেদককে জানান তার ব্যাক্তিগত সহকারী।

আর গাছ কাঁটার সত্যতা স্বীকার করে সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নাজিম উদ্দিন নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, ‘ভূইগড়ে সড়কের পাশে যেই গাছ গুলো কাঁটা হয়েছে সেগুলো রূপায়ন হাউজিংয়ের লাগানো গাছ ছিল। তাই এগুলো কেটে এখন বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ গাছ লাগানো হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here