নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: আসন্ন পবিত্র মাহে রমজান ও ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে জেলা পুলিশ সুপারের সাথে মত বিনিময় সভায় নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন ব্যবসায়ী নেতা ও শ্রমিক নেতারা মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন। রোজায় যানজট সহনীয় পর্যায়ে রাখতে নগরীতে নিজেদের অর্থায়নে কমিউনিটি পুলিশের ব্যবস্থা করার আশ^াস দিয়েছে ব্যবসাীয়রা।

আর শ্রমিক নেতারা রমাজন মাসে শ্রমিকদের কাজ কম করিয়ে দ্রুত ছুটি দেয়ার আহবান জানান।

শনিবার (২৭ মে) সকালে জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সভাকক্ষে এই মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমানের পক্ষে অংশ নেয়া বিকেএমইএ’র সাবেক সহ সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে শ্রমিকদের বেতন বোনাস নিয়ে যাতে কোন প্রকার ঝামেলার সৃষ্টি না হয় সে ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে আছি আমরা। প্রতিটি গার্মেন্টস মালিককে এ ব্যাপারে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া রোজার মাসে বিসিকের গার্মেন্টসগুলো বিকাল ৪টা থেকে সাড়ে পাঁচটা পর্যন্ত সময়ের মধ্যে পর্যায়ক্রমে ছুটি দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাতে সড়কে যানজটের সৃষ্টি না হয়। পুলিশের পাশাপাশি কমিউনিটি পুলিশের ব্যবস্থা করা হবে। এর খরচের বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ চেম্বার ও বিকেএমইএ দায়িত্ব নিচ্ছে।

নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল বলেন, গতবার আমরা সবাই মিলে কমিউিনিটি পুলিশের ব্যবস্থা করেছিলাম। এবারও করা হবে। তবে নিতাইগঞ্জের দিকে একটু খেয়াল রাখতে হবে। এখানে এলোপাথারীভাবে ট্রাক রাখার কারনে যানজটের সৃষ্টি হয়। তাছাড়া এখানে সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলরদের উপস্থিতি আশা করেছিলাম। তাদের অনুপস্থিতি দু:খজনক। শহরের খানপুরে কয়েকটি কোম্পানীর বাস রেখে রাস্তা দখল করা হয়। এটাও বন্ধ করতে হবে।

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমানের প্রতিনিধি হিসেবে সভায় উপস্থিত মহানগর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক শাহ নিজাম বলেন, পঞ্চবটী টু পাগলা পর্যন্ত যানজটের মূলে হচ্ছে ট্রাক। তাই এই যানজট নিরসনে পলাশকে দায়িত্ব নিতে হবে।

কেন্দ্রীয় শ্রমিকলীগ নেতা আলহাজ¦ কাউসার আহমেদ পলাশ বলেন, রোজার মাসে গার্মেন্টসগুলোতে ওভারটাইম করানো হলে যাতে ইফতারের ব্যবস্থা হয়। পঞ্চবটি মোড়ে যানজটের প্রধাণ কারন হলো বোরাক বাস। আর পাগলায় যানজটের প্রধাণ কারন হলো ট্রাক। এখানে একটি ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণের দাবী জানিয়ে আসছি অনেকদিন যাবত।

নারায়ণগঞ্জের পাবলিক প্রসিকিউটর ওয়াজেদ আলী খোকন বলেন, রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করে চলা আমাদের সকলের কর্তব্য। এ মাসে ব্যবসায়ীরা কম মুনাফা করবেন। পণ্যে ভেজাল মিশাবেন না। নারায়ণগঞ্জের রেল ষ্টেশন এর আশেপাশে মাদকের আস্তানা গড়ে উঠেছে। কিন্তু জিআরপি পুলিশ আজও পর্যন্ত একটা মামলা দায়ের করেনি।

নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শরফুদ্দিন সবুজ বলেন, নারায়ণগঞ্জের ফুটপাত থেকে হকার পুরোপুরি উচ্ছেদের পক্ষে আমি নই। হকার উঠে গেলে কম দামে মানুষ পণ্য কিনতে পারবে না। তবে ফুটপাত ছেড়ে হকাররা যাতে সড়কের উপরে ভ্যানগাড়িতে করে দোকান বসাতে না পারে, সে বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে। শহরের বড় বড় হোটেলগুলো তাদের সামনের রাস্তায় প্যান্ডেল টানিয়ে ইফতার বিক্রি করে রাস্তা দখল করে নেয়। এসব অবৈধ দখল ঠেকাতে হবে।

পাগলা মুন্সিখোলা রড় মার্চেন্ট এ্যাসোসিশেনের সভাপতি মো: খোকন বলেন, ব্যবসায়ী এলাকায় যানজট একটু হবেই। কারন লোড আনলোড রাস্তার পাশেই করতে হয়। রোজার মাসে রাস্তার উপর কোন রড থাকবে না। তাছাড়া লোড আনলোডের দিকেও খেয়াল রাখা হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাক, ট্যাঙ্ক লরী, কাভার্ড ভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মাসুদুর রহমান মানিক বলেন, নিতাইগঞ্জে যানজট একটা পুরানো সমস্যা। তবে বর্তমানে তা তুলনামূলকভাবে কম। তাছাড়া এখন নিতাইগঞ্জে শুধুমাত্র ট্রাকের কারনে যানজট হয় না। লেগুনা নামের একটা পরিবহন এখন নিতাইগঞ্জে যানজট সৃষ্টি করছে।

নিতাইগঞ্জ লোড আনলোড শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কামরুল হাসান মুন্না বলেন, নিতাইগঞ্জে যানজট নেই, কথাটা ঠিক না। আজকেও যানজটের কারনে আমি পাইকপাড়া ঘুরে এসেছি। নিতাইগঞ্জের কোন মিল মালিক যাতে শ্রমিককে আসর থেকে মাগরিব পর্যন্ত কাজ করতে বাধ্য না করে। দুই ঘন্টা কাজে বিরতি থাকলে রোজার মাসে যানজট থাকবে না।

নারায়ণগঞ্জ দোকান মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আরিফ দিপু বলেন, হকার এখন নারায়ণগঞ্জে একটা স্থায়ী সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর সাথে গত কয়েক বছর যাবত নতুন এক সমস্যা তৈরী হয়েছে জামদানী ও কুটির শিল্প মেলা। এই মেলায় জামদানী ও কুটির শিল্পের নামে জামাকাপড়, প্রসাধনী সামগ্রী থেকে শুরু করে সব ধরনের পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। এতে করে আমরা দোকান মালিকরা আইসিইউতে যাবার উপক্রম হয়েছে।

হিমালয়, মেঘলা ও শ্রাবণ ট্রান্সপোর্টের এমডি মীর আ: সালাম বলেন, আমি আজকে এখানে পরিবহন মালিক শ্রমিকদের দু:খের কথা বলবো। কিছুদিন আগে হিমালয় ট্রান্সপোর্টের ড্রাইভারকে চাঁদা না দেওয়ায় কাঁচপুরে আঙ্গুল কেটে নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে থানায় কোন মামলা নেয়া হয়নি, এমনকি জিডি পর্যন্ত নেয়নি থানা কতৃপক্ষ। তাই কাঁচপুরে চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে। তাছাড়া রাস্তায় মোবাইল কোর্টের কারনে যানজট সৃষ্টি হয়।

পরে ব্যবসায়ীদের সকল সমস্যার সমাধানের আশ^াস দেন পুলিশ সুপার মো: মঈনুল হক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here