নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকার বলেছেন, দেশের এক চরম ক্রান্তিকালে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বিএনপি’র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। বিএনপি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দেশে বহুদলীয় গনতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো। কিন্তু কিছু কেন্দ্রীয় নেতা নারায়ণগঞ্জ বিএনপিকে জিম্মি করে ফেলেছে। তারা কেন্দ্রে বসে কমিটি দেওয়ার নামে ব্যবসা করছে। রাজনীতির নামে বিএনপিতে এখন যা চলছে, তা কোন ব্যাকারনে পরে না। ব্যাকারনহীন রাজনীতির চর্চা চলছে এখন নারায়ণগঞ্জে।

বিএনপি’র ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধাণ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বুধবার (৩০ আগষ্ট) মাসদাইর মজলুম মিলনায়তনে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

এড. তৈমূর আলম খন্দকার আরো বলেন, আমি বিএনপি’র রাজনীতি করতে গিয়ে কোনদিন রাজপথ ছেড়ে যাইনি। অনেকে বলেছে, আপনি দৌড় দেন না কেন? আমি বলেছি, আমি দৌড় দিলে লোকে বলবে খালেদা জিয়া দৌড় দিয়েছে। তাই কোনদিন দৌড় না দিয়ে রাজপথে থেকে পুলিশের নির্যাতনের স্বীকার হয়েছি। মাঠ কোনদিন ছাড়িনি আর ভবিষ্যতের ছাড়বো না। পদ পদবঅর লোভ আমার আর নাই, আল্লাহপাক আমাকে অনেক দিয়েছেন। কিন্তু আমার সাথে রাজচপথে আন্দোলন সংগ্রাম কওে যেসব নেতাকর্মী মামলা হামলার স্বীকার হয়েছে, তাদেও অধীকার প্রতিষ্ঠার জন্য আমি লড়াই চালিয়ে যাবো। ঘরে বসে নেতাগিরি করা লোকদের নিয়ন্ত্রণে কমিটি থাকতে পারে না।

তিনি আরো বলেন, দেশের বিচার বিভাগ এখন আর স্বাধীন নেই। রাজনৈতিক মামলায় গ্রেফতার হওয়া বিএনপি নেতাকর্মীদের জামিনের জন্য জজ সাহেব আগে আইন মন্ত্রনালয়ে যোগাযোগ করেন এবং তাদের অনুমতি পেলে জামিন দেন নতুবা নয়। আর এ কারনেই সকল কাগজপত্র জমা দেওয়ার পরেও মহিলা দল নেত্রী রাশিদা জামালের জামিন দেওয়া হয়নি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুকুল ইসলাম রাজিব বলেন, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি নামে আছে, কিন্তু কোন সাংগঠনিক অবস্থান এখনো তারা সৃষ্টি করতে পারেনি। কারন আন্দোলন সংগ্রাম না কওে যদি কমিটিতে পদ পাওয়া যায়, তাহলে কে যাবে রাাজপথে পুলিশের হামলা মামলার শিকার হতে। যেসব নেতাদেও কোন কর্মী নেই, ওয়ার্ড বা ইউনিয়ন পর্যায়ের নেতা হওয়ার কোন যোগ্যতা নেই, তাদেরকে দেয়া হয়েছে জেলা বিএনপি’র গুরুত্বপূর্ণ পদ। আর তাই এই কমিটি নেতাকর্মীদের জন্য অভিশাপ হয়ে দেখা দিয়েছে।

বিএনপি’র চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকারকে উদ্দেশ্য কওে রাজিব বলেন, তৈমূর ভাইকে তার পালিত সাপেই ছোবল দিয়েছে। তৈমূর ভাইয়ের সবচেয়ে বড় ভুল হচ্ছে, ভাল খারাপ যাচাই না করে যাকে তাকে রাজনীতিতে এনেছেন। তার কাছের লোকই তার সাথে বেঈমানি করেছে। যে নুরুদ্দিন হাজির জন্য তৈমূর ভাইকে অনেক কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে যুদ্ধ করতে দেখেছি, কোথায় আজ সেই নুরুদ্দিন। আপনার পদ চলে যাওয়ার সাথে সাথে তারাও আপনার সঙ্গ ছেড়ে দিয়েছে। আপনি আপনার পকেটে সাপ পুষেছেন। তাই তৈমূর ভাইকে বলবো, আপনি বেঈমান চিনেন। আপনি হলেন নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র অভিভাবক। আপনাকে কেউ ডাকুক আর নাই ডাকুক, আপনি আমাদের ডাকুন। তৃণমূল আপনার সাথে ছিলো, ভবিষ্যতেও থাকবে। তৃণমূলকে নিয়ে আপনি আবারো নারায়ণগঞ্জের রাজপথ কাপিয়ে দিন। এমনিভাবে সারাদেশের তৃণমূল যদি রাস্তায় নেমে আসে, তাহলে সাত দিনের মধ্যে এই স্বৈরাচারী সরকারের পতন ঘটানো সম্ভব হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আনোয়ার হোসেন খানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন রাখেন সাবেক নগর বিএনপি নেতা নুরুল হক চৌধুরী দিপু, সোনারগাঁ থানা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম টিটু, ১৮নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সভাপতি আনোয়ার দেওয়ান, জেলা মহিলা দলের সভানেত্রী নুরুন্নাহার, মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম সম্পাদক আয়েশা আকতার দিনা, মহানগর যুবদলের যুগ্ম আহবায়ক সানোয়ার হোসেন, রানা মুজিব প্রমূখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here