নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ঢাকা দক্ষিণের কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার কাজী মোস্তাফিজুর রহমান বলেছেন, ভ্যাট হচ্ছে ভোক্তা কর। এটা ব্যবসায়ীদের পকেট থেকে দেওয়ার কোন বাধ্য বাধকতা নেই। ভ্যাটের চিন্তাটাই এসেছে ব্যবসায়ীদের মাথা থেকে। তাঁরা চিন্তা করেছেন করের থেকে ভ্যাট দেয়াটা সুবিধাজনক। এখান থেকে ভ্যাটের সৃষ্টি। এর মাধ্যমে ব্যবসা বান্ধব একটি পরিবেশ তৈরি করা সম্ভব।
শনিবার (২১ এপ্রিল) সকালে নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি এর উদ্যোগে নারায়ণগঞ্জ ক্লাবে ঢাকা দক্ষিন কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারদের সাথে ব্যবসায়ীদের মত বিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল এর সভাপতিত্বে মত বিনিময় সভায় প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ রি-রোলিং মিলস এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী।

ভ্যাট কমিশনার বলেন, আপনি ভ্যাট দিবেন কিন্তু আপনার পাশের জন ভ্যাট দিবেনা, এরকম হলে তো আর ব্যবসা বান্ধব পরিবেশ তৈরি হবে না। এই কারনেই কিছু নিয়ম নীতি তৈরি করা হয়েছে। আমরা ও আপনাদের ব্যবসায়ীক সংগঠনগুলো এই পরিবেশ ধরে রাখতে পারি।

ব্যবসায়ীদের দাবীকৃত প্যাকেজ ভ্যাট প্রসঙ্গে তিনি বলেন, প্যাকেজ ভ্যাটে ব্যবসায়ীদের লাভ নয়, বরং ক্ষতি বেশি। প্যাকেজ ভ্যাট কিন্তু ভোক্তার কাছ থেকে আমরা নিতে পারি না। তাই আমরা মনে করি প্যাকেজ ভ্যাট না দিয়ে রিয়েল ভ্যাট মানে আসল ভ্যাট সেটা দেন। অনেকে মনে করেন, ৪% দিলে আপনারা লাভবান আর ১৫% দিলে আপনারা ক্ষতিগ্রস্থ হন। কিন্তু আসলে তা নয়। ১৫% ভ্যাট দিলে আপনারা লাভবান হবেন। আপনাদের এটা হিসাব করতে হবে। হিসাব না করলে আপনি এটা বুঝতে পারবেন না।

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে মোহাম্মদ আলী বলেন, আমরা যারা ব্যবসা করি, ভ্যাট কমিশন ছাড়া ছাড়া আমাদের চলার কোন উপায় নাই। কিন্তু তিনবার আপনাদেরকে চিঠি দেয়া হলেও আপনারা আমাদের ডাকে সাড়া দেন নি। যার ফলে আজকে এই আয়োজনের মধ্য দিয়ে আপনাদের কে এখানে আমন্ত্রন জানানো হয়েছে। আপনাদের সহযোগিতা করার জন্যই আমরা হাত বাড়িয়ে বসে আছি। আপনারা যেভাবে ভ্যাট বাড়াতে বলবেন সেভাবেই বাড়িয়ে দেবো। কিন্তু ব্যবসায়ীদের কথা মাথায় রেখে অবশ্যই তার পরিমাণ সহনীয় পর্যায়ে রাখবেন। তাহলে ব্যবসায়ীদের পক্ষ হতে আগামীতে ভ্যাটের পরিমাণ আরো বৃদ্ধি পাবে।

মত বিনিময় সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন ঢাকা দক্ষিনের অতিরিক্ত কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার মোঃ শামসুল ইসলাম, বাংলাদেশ ইয়ার্ন মার্চেন্ট এসোসিয়েশনস এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক দেবনাথ সাহা, বাংলাদেশ রি-রোলিং মিলস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মাহাবুবুর রহমান জুয়েল,বাংলাদেশ স্টীল কর্পোরেশনস এর সাধারন সম্পাদক মোঃ শাহজাহান, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্স এন্ড এসোসিয়েশনস এর সহ-সম্পাদক মুখলেস সারোয়ার শহীদসহ জেলার বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠনের ব্যক্তিবর্গ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here