নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেছেন, তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ও দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রীর গাড়ী বহরে হামলা করে প্রমান করেছে আওয়ামী লীগ জঙ্গি সরকারে পরিনত হয়েছে। সন্ত্রাসী সোনার ছেলেরা পুলিশী প্রটেকশন পায়, আর আমরা অধিকারের কথা বললে পুলিশী হামলার শিকার হই। এক দেশে দুই নীতি চলতে পারে না। অচিরেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গনতন্ত্র পুনুরুদ্ধার হবে, ইনশায়াল্লাহ।

ফেনীতে বিএনপি’র চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়ার গাড়ী বহরে হামলার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় যুবদল ঘোষিত কর্মসূচীর অংশ হিসাবে মহানগরীতে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে খোরশেদ এ কথা বলেন।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের আহবায়ক কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জ স্কাঊট ভবন থেকে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবে গিয়ে শেষ হয়।

বিক্ষোভ মিছিল শেষে প্রেস কøাবের সামনে সমাবেশ করে মহানগর যুবদল। মহানগর যুবদলের আহবায়ক কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সানোয়ার হোসেন,যুগ্ম আহবায়ক মমতাজউদ্দিন মন্তু, রানা মুজিব, জুয়েল রানা, জুয়েল প্রধান, সাগর প্রধান ও বন্দর থানা যুবদলের সভাপতি আমির হোসেন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক ইকবাল হোসেন প্রমুখ।

বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিলে আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক নগর বিএনপি নেতা রাসেল আহমেদ মনির, বন্দর উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম রিপন, সিনিয়র সহ-সভাপতি নজরুল ইসলাম, বন্দর থানা যুবদলের সহ-সভাপতি সোহেল খান বাবু, সাংগঠনিক সম্পাদক আলী নুর তুষার, যুগ্ম সম্পাদক কাজী সোহাগ, আক্তার হোসোন জাহিদ, মাহবুবুর রহমান, পনির হোসেন, হুমাযুন, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা যুবদলের ফয়সাল মাহমুদ, মন্জু মিয়া, বোরহান, ইব্রাহিম, মোস্তাফিজুর রহমান বাহার, ইসমাইল হোসেন মিলন, মিজান, সুমন ভূইয়া, হারুন, জাকির, মহানগর যুবদল নেতা রিটন দে, আব্দুর রহমান, ইউনুস খান বিপ্লব, মাহাবুব হাসান জুলহাস, ইসলেউদ্দীন ইসা, সরকার লিমন, শহীদ, মিঠু আহম্মেদ, রানা মুন্সী, শাহীন,শওকত খন্দকার, ওসমান গনি, আল আমিন খান, মুহিন আহম্মেদ রিপন, মহিদ্দিন শুভ, দেলোয়ার হোসেন দেলু, সরকার মুজিব, আল-মামুন, জানে আলম দুলাল, ছামছুল আলম, আকতার হোসেন অপু, আফাজউদ্দিন আফতাব প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here