নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: মহাষ্টমীতে মা দূর্গার যেন তান্ডব দেখলেন নারায়ণগঞ্জের সনাতন ধর্মালম্বীরা। ‘নৌকায়’ এসেছেন মা দূর্গা, যার ফলে ভারী বৃষ্টিপাত সহ হবে বন্যা। তাই তো মহাষ্টমীর বিকেলে এর প্রভাব দেখলো নারায়ণগঞ্জের ভক্তরা। ম্লান হয়ে গেছে মহাষ্টমীর আনন্দ, বিঘœ ঘটেছে প্রতিমা দর্শনে।
বৃহস্পতিবার (২৮ সেপ্টেম্বর) শারদীয় দূর্গোৎসবের মহাষ্টমীর বিকেলে বজ্রপাতসহ ভারী বর্ষণে নগরীর বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টিসহ একাধিক পূজা মন্ডপে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়ে যায়। সন্ধ্যার পর বিভিন্ন মন্ডপ ঘুরে প্রতিমা দর্শনার্থীদের চরম দূর্ভোগ পোহাতে হয়।

প্রায় ঘন্টা ব্যাপী চলমান বৃষ্টিতে শহরের উকিলপাড়া পূজা মন্ডপ, আমলাপাড়া পূজা মন্ডপ, ডাইলপট্টী প্রজন্ম প্রত্যাশা পূজা মন্ডপ, টানবাজার বঙ্কবিহারী আখড়া পূজা মন্ডপসহ আরো একাধিক মন্ডপের সড়কে থাকা তোড়ন নষ্ট হয়ে গেছে বলে পূজা উদযাপন নেতৃবৃন্দ সূত্রে জানাযায়।

এদিন সন্ধ্যায় সরেজমিন দেখাগেছে, কয়েক ঘন্টার টানা বর্ষণে নিতাইগঞ্জ নলুয়া সড়ক থেকে চাষাড়া পর্যন্ত প্রধান সড়ক গুলো বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে। উক্ত সড়কের পাশে নির্মিত অস্থায়ী পূজা মন্ডপ গুলোর পাশে কাঁদায় যুক্ত হয়ে গেছে।

বিশেষ করে মহাষ্টমীর রাতে প্রতিমা দেখতে নগরীর মন্ডপ গুলোতে দর্শনার্থীদের ভীড় পরিলক্ষিত হলেও বৃষ্টিতে সড়ক তলিয়ে যাওয়াসহ কাঁদায় সড়ক স্যাঁতস্যাঁতে হয়ে যাওয়ায় মানুষ চাইলেও এদিন অনেকেই প্রতিমা দর্শনে বের হননি।

কেউ কেউ বলেন, ‘নৌকায়’ এসেছেন মা দূর্গা, যার ফলে অশুভ কে দূর করতে ভারী বর্ষণের মাধ্যমে তান্ডব দেখিয়ে দিয়েছেন।’
এরআগে দুপুরে মহাষ্টমীর মনবাসনা কামনার্থে উপবাস থেকে মন্ডপে মন্ডপে মা দূর্গার চরনে পুষ্পাঞ্জলী প্রদান করেন ভক্তরা। রাতে অষ্টমী ও মহানবমীর সন্ধিক্ষনে অনুষ্ঠিত হয় সন্ধি পূজা।

শুক্রবার মহানবমী। মহাযজ্ঞের মাধ্যমে শেষ হবে শারদীয় দূর্গোৎসবের মূল আনুষ্ঠানিকতা। শনিবার দর্পন বিসর্জ্জনের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হবে বিজয়া দশমী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here