নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: মহাসচিবের নির্দেশনা মোতাবেক তার মান রাখতে ও কেন্দ্রের প্রত্যাশা পূরণে সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষ্যে কেন্দ্রীয় বিএনপি আয়োজিত সমাবেশে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী নিয়ে যোগদান করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দরা।
রবিবার (১২ নভেম্বর) রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া।

তাই এদিন সকালে নারায়ণগঞ্জ জেলার বিভিন্ন উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন থেকে বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মী নিয়ে সমাবেশস্থলকে জনসমুদ্রে পরিনত করেন বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দরা।


জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক মামুন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান রোজেল, পারভেজ, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার, আ: হাই রাজুর নেতৃত্বে দলীয় নেতাকর্মীরা প্রথমে ঢাকা মৎস ভবনের সামনে গিয়ে অবস্থান করেন। পরবর্তীতে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির ব্যানারে নেতৃবৃন্দরা সমাবেশে গিয়ে যোগদান করেন।

এব্যাপারে জেলা বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শিকদার বলেন, ‘সরকার গণপরিবহন চলাচল বন্ধ করে দিয়ে ভেবেছিল দলীয় নেতাকর্মীরা সমাবেশ স্থলে পৌছাতে পারবে না। আর বিএনপি চেয়ারপার্সনের বদনাম করবে। কিন্তু তারা জানেনা, কোন প্রতিবন্ধকতাই শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের সৈনিকদের প্রতিহত করতে পারবে না। তাই তো দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার ডাকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সমাবেশে সকল প্রতিকূলতা পেরিয়ে সমাবেশস্থলকে জনসমুদ্রে রূপান্তরের মাধ্যমে কেন্দ্রের প্রত্যাশা পূরণ করতে সক্ষম হয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দরা।’

উল্লেখ্য, রাজধানীর পাশ^াবর্তী জেলা হওয়ার সুবাধে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দবস উপলক্ষ্যে ১২ নভেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত সমাবেশে ব্যাপক লোক সমাগম ঘটাতে নারায়ণগঞ্জ বিএনপির শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দকে নির্দেশ দিয়েছিল মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তাই তার মান রাখতে সমাবেশে বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মীর উপস্থিতি ঘটিয়ে সমাবেশস্থলকে জনসমুদ্রে রূপান্তরের সহায়ক হয়েছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here