নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ আদালতে বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের মাঝে বিভক্তি ক্রমেই চরম আকার ধারন করছে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল। মুখে সবাই ঐক্যের কথা বললেও দৃশ্যমান ঐক্য এখনও তৈরী হয়নি, বরং এড. তৈমূর আলম খন্দকার সমর্থিত গ্রুপের অনড় অবস্থানের কারনে তা জটিলতর হচ্ছে বলে ধারনা আদালতের আইনজীবীদের। নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র অভিভাবক সংগঠন জেলা ও মহানগর বএনপি’র পক্ষ থেকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের প্যাণেল গঠনের দায়িত্ব এড. সরকার হুমায়ুন কবীরের জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের উপর ন্যাস্ত করা হলেও পিছপা হয়নি তারই তিনদিন আগে একই প্যাণেলের জন্য গঠিত তৈমূর সমর্থিত মনোনয়ন বোর্ড। তারাও আসন্ন নির্বাচনে প্যাণেল গঠনের লক্ষ্যে তাদের কার্যক্রম অক্ষুন্ন রেখেছে এবং তা অব্যহত থাকবে বলেও জানিয়েছেন তারা।

সূত্রে প্রকাশ, নারায়ণগঞ্জ আদালতে অনেকদিন আগে থেকেই দুটি গ্রুপে বিভক্ত ছিলো বিএনপি’র আইনজীবীরা। এর এক গ্রুপের নেতৃত্বে বিএনপি চেয়ারপার্সণের উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকার, অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালাম আরেক পক্ষের নেতৃত্বে। বিএনপি পন্থী আইনজীবীরাও এ দুটি ধারার সমর্থনে পরিচালিত হয়ে থাকে। নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির বিগত নির্বাচনগুলোতে মারাত্মক প্রভাব লক্ষ্য করা গেছে। নিজেদের মধ্যেকার কোন্দলের কারনে বৃহত সমর্থণ থাকা সত্বেও সমিতির গুরুত্বপূর্ণ পদগুলো আওয়ামীলীগের কাছে উপহার দিতে হয়েছে। প্রতি নির্বাচনের আগে ঢাক ঢোল পিটিয়ে ঐক্যবদ্ধ নির্বাচনের প্রতিশ্রুতি দেয়া হলেও কার্যত: তার দৃশ্যমান প্রমাণ মেলে না। বরং বিএনপি’র হেভিওয়েট প্রার্থীকেও আওয়ামীলীগের দুর্বল প্রার্থীর কাছে আত্মসমর্পণ করতে হয়েছে। যার ধারাবাহিকতায় এবারের কোন্দল একেবারেই প্রকাশ্য রূপ ধারন করেছে।

সূত্র মতে, নারায়ণগঞ্জ আদালতের বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের এবারের নির্বাচনী কোন্দলের প্রকাশ্য রূপের সূচনা হয় কেন্দ্র থেকে জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের কমিটি গঠনের পর থেকেই।

এড. সরকার হুমায়ুন কবীরকে সভাপতি ও এড. খোরশেদ আলম মোল্লাকে সাধারণ সম্পাদক করে ঘোষিত কমিটিতে তৈমূর পন্থীরা কাঙ্খিত পদ না পাওয়ায় এ কমিটিকে বয়কট করেন। এড. আবদুল বারী ভূইয়া, এড. বোরহানউদ্দিন সরকার, এড. আবদুল হামিদ ভাষাণী, এড. সামসুজ্জামান খোকা, এড. শরিফুল ইসলাম শিপলুরা এ কমিটির বিরোধীতা করে আদালতপাড়ায় মিটিং মিছিল করেন। এমনকি নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন পর্যন্ত করেও কোন সমাধান না পেয়ে তৈমূর আলম খন্দকারের বাস ভবনে বসে এড. আবদুল বারী ভূইয়াকে সভাপতি ও এড. আবদুল হামিদ ভাষানীকে সাধারণ সম্পাদক করে ফোরামের পাল্টা কমিটি ঘোষনা করেন। আইনজীবীদের সংগঠন আদালত প্রাঙ্গণে না হয়ে তৈমূর আলমের বাসায় বসে গঠিত হওয়ায় সে সময়ই এ কমিটির বৈধতা নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়। সে বিতর্কের ধারাবাহিকতা অব্যহত রেখে আসন্ন বার নির্বাচনে প্যাণেল গঠন বিষয়েও তারা আলাদা অবস্থান গ্রহন করে এবং সেই একই স্থানে বসে গোপন বৈঠকের মাধ্যমে নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ড গঠন করে।

এদিকে কেন্দ্রের গঠন করে দেয়া ফোরামের পক্ষ থেকেও আসন্ন বার নির্বাচন নিয়ে প্রস্তুতি নেয়া হয়। সে লক্ষ্যে গত সোমবার জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের উদ্যোগে বার ভবনের চতুর্থ তলায় মত বিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। সে মত বিনিময় সভায় উপস্থিত হয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালাম, সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল এক বাক্যে কেন্দ্র ঘোষিত ফোরামের কমিটিকে একমাত্র বৈধ কমিটি আখ্যা দিয়ে আসন্ন বার নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের প্যাণেল গঠনের দায়িত্ব এই কমিটির উপর অর্পণ করেন।

সে মতে প্রস্তুতিও সারছে কমিটির নেতৃবৃন্দরা। বুধবার থেকে তারা মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু করবে। অপরদিকে আরো তিনদিন আগে গঠিত অপর মনোনয়ন বোর্ডও প্যাণেল গঠনের সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করছেন। যার ফলে একই প্যাণেল গঠনে অবস্থানে নারায়ণগঞ্জ আদালতের বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের দুই গ্রুপ এবার মুখোমুখি অবস্থানে চলে এসেছে। যদিও মুখে সবাই ঐক্যের কথা বলছেন, কিন্তু প্রকৃতপক্ষে কোন্দলের কালো মেঘ আরো ঘনিভূত হচ্ছে বলেই ধারনা সংশ্লিষ্টদের। আর সে ক্ষেত্রে আসন্ন নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে বিএনপি’র দুটি প্যাণেলের শংকা তৈরী হয়েছে বিএনপি পন্থী আইনজীবীদের মাঝে।

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি এড. সরকার হুমায়ুন কবীর নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, বুধবার থেকে ফোরাম থেকে মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু হবে, যাচাই বাছাই করে ফোরামের পক্ষ থেকেই মনোনয়ন চুড়ান্ত করা হবে। নির্বাচনের তপসিল ঘোষনা করা হলে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য পরিষদের পক্ষে নির্বাচন পরিচালনার জন্য একটি উপদেষ্টা পরিষদ ও একটি পরিচালনা কমিটি গঠন করা হবে।

একই বিষয়ে তৈমূর গ্রুপের মনোনয়ন বোর্ডের আহবায়ক এড. আবদুল বারী ভূইয়া নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, এখনও বলা যাচ্ছে না দুটি প্যাণেল হবে কিনা তবে আমাদের কার্যক্রম অব্যহত থাকবে।

একই মনোনয়ন বোর্ডের মূখপাত্র এড. শরিফুল ইসলাম শিপলু নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডিকে বলেন, তফসিল ঘোষনার পর আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে মনোনয়ন বিক্রি শুরু করবো। তবে মনোনয়ন বোর্ড থেকে এখন সম্ভাব্য প্রার্থীদের সাথে আলাপ আলোচনা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই সভাপতি পদের জন্য এড. আবদুল হামিদ ভাষানী জোড়ালো দাবী জানিয়েছেন।

তাছাড়া সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য আলোচনায় আছেন এড. মশিউর রহমান শাহিন, এড. সামাদ মোল্লা ও এড. আজিজুর রহমান মোল্লা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here