স্টাফ রিপোর্টার: অতীত অভিমান ভুলে পুনরায় উন্নয়ণের ধারা অব‌্যাহত রাখতে আসন্ন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন ১৮ নং ওয়ার্ডে কামরুল হাসান মুন্নাকে কাউন্সিলর হিসেবে নির্বাচিত করতে ঐক‌্যবদ্ধ ভাবে মাঠে নেমে পড়েছেন সাধারন ওয়ার্ডবাসী।
আরএই ওয়ার্ডবাসীকে মুন্নার পক্ষেঐক‌্যবদ্ধ করার নেপথ‌্যে কাজ করেছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমানের বেয়াই ও নারায়ণগঞ্জ ক্লাব লিমিটেডের সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব ফয়েজ উদ্দিন আহম্মেদ লাভলু ও মাদার প্রিন্টের স্বত্তাধিকারী এস এম রানা।

স্থানীয়সূত্রে জানাগেছে, নাসিক ১৮ নং য়োর্ডে ৫/৬ জন কাউন্সিলর প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী থাকলেও শুধুমাত্র মুন্নার বিজয় নিশ্চিতে ওয়ার্ডবাসীকে ঐক‌্যবদ্ধ করে তুলেছেন লাভলু ও রানা।

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই উপড়ের মহলের নির্দেশে এই দু’জনের নেতুত্বে ও নির্দেশে স্থানীয় বিভিন্ন দলের নেতৃবৃন্দ সহ সাধারণ জনগণ প্রতিদিন এক এলাকা থেকে আরেক এলাকা, এক ঘর থেকে আরেক ঘরে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে কাউন্সিলর প্রার্থী মুন্নার জন‌্য দোয়া ও ভোট প্রার্থণা করছেন।
গত ৩ ডিসেম্বর বিকেলে ১৮ নং ওয়ার্ডে মুন্নার পক্ষে বিশাল শোডাউন হয়।

যেখানে তার সাথে ছিলেন ফয়েজ উদ্দিন আহম্মেদ লাভলু সহ স্থানীয় বিভিন্ন এলাকার গণ‌্যমান‌্য ব‌্যাক্তি বর্গ। ঐ সময় সংক্ষিপ্ত এক পথসভায় ফয়েজ উদ্দিন আহম্মেদ লাভলু সাধারন ভোটারদের উদ্দেশ‌্যে বলেন, আগামী ১৬ জানুয়ারী অনুষ্ঠিতব‌্য নাসিক নির্বাচনে ১৮ নং ওয়ার্ডে মুন্নাকে কাউন্সিলর নির্বাচিত করার লক্ষ‌্যেই আজ আমরা ঐক‌্যবদ্ধ‌্য হয়েছি। বিগত সময়ে দুইবার কাউন্সিলর থাকাবস্থায় মুন্নার নেতৃত্বে উক্ত ওয়ার্ডের যে উন্নয়ণ কর্মকান্ড হয়েছিল, তার ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে এবারও আমাদের সবাইকে ঐক‌্যবদ্ধ হয়ে তাকে পুনরায় কাউন্সিলর নির্বাচিত করতে হবে।

বিশিষ্ট ব‌্যবসায়ী এস এম রানা বলেন, কাউন্সিলর থাকা অবস্থায় মুন্না এই ওয়ার্ডবাসীর জন‌্য কি করেছিলেন তা আপনারা দেখেছেন। যেকোন কাজ করতে গেলে প্রত‌্যেকেরই ভুল ভ্রান্তি হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে যদি মুন্নার অতীত কোন কর্মকান্ডে বা ব‌্যবহারে আপনারা কেউ কষ্ট পেয়ে থাকেন তাহলে আমি তাদেরকে তা ক্ষমা করে দেয়ার জন‌্য অনুরোধ জানাচ্ছি। আমি কথা দিচ্ছি, এইবার মুন্নাকে আপনারা কাউন্সিলর নির্বাচিত করতে সেবা পেতে আপনাদের মুন্নার কাছে আসতে হবে না, মুন্নাই আপনাদের দড়গোড়ায় গিয়ে কাঙ্খিত সেবা পৌছে দিবে।

সরেজমিন ঘুরে দেখাগেছে, ১৮ নং ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর কবির হোসাইন একজন হেভীওয়েট প্রার্থী হলেও তার চেয়ে দ্বিগুণ গণজোয়ার বইছে মুন্নার পক্ষে। শিশু থেকে বৃদ্ধ পর্যন্ত বয়সের সকল শ্রেণী পেশার মানুষের মুখে যেন শুধুই “মুন্না ভাই, মুন্না ভাই” শ্লোগান উচ্চরিত হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here