নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ডাক্তারের অবহেলার কারনে নবজাতক কণ্যা সন্তানের মুখ দেখা আর হলোনা সাবিহা তাসমিয়া ঝুমা (২৫) নামের এক গর্ভধারিনী মায়ের। নবজাতক সন্তানের মুখ দেখার আগেই চলে যেতে হলো তাকে না ফেরার দেশে।
বৃহস্পতিবার (৮ মার্চ) দুপুর আড়াইটায় নগরীর ১৭ নং নবাব সলিমুল¬াহ রোড ডন চেম্বার এলাকায় অবস্থিত মেডিস্টার জেনারেল হাসপাতালের সার্জারী ওয়ার্ডে এ ঘটনা ঘটে।

ডাক্তারের দায়িত্ব অবহেলা আর ভুল চিকিৎসাজনিত কারনে ঝুমার মৃত্যুর অভিযোগে হাসপাতালে ব্যাপক ভাংচুর চালায় প্রসূতির স্বজনেরা। স্ত্রীকে হারানোর বেদনায় স্বামী-স্বজনদের কান্নায় ভারী হয়ে উঠে হাসপাতালের পরিবেশ। এসময় আতংক ছড়িয়ে পড়ে হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধান রোগীদের মাঝে।

এদিকে এই ঘটনায় মেডিস্টার জেনারেল হাসপাতালের দুই ডাক্তার ও তিন ওটি সিষ্টারকে আটক করেছে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, মেডিস্টার জেনারেল হাসপাতালের গাইনোকলজিষ্ট ডাক্তার অমল কুমার রায়, তার সহযোগী ডাক্তার বদরুদ্দোজা এবং ওটি সিস্টার মুনা (৩০), ঝর্ণা (২৮) ও মৌসুমী (৩০)। ঘটনার পর পরই হাসপাতালের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়ে যায়।

নিহত ঝুমার স্বামী কামরুল হাসান শরীফ জানান, ‘তার স্ত্রী ঝুমা প্রায় ১০ মাস যাবত ডা: অমল রায়ের তত্ত্বাবধানে ছিলেন। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে ঝুমার প্রসব বেদনা উঠলে তাকে মেডিস্টার জেনারেল হাসপাতালে এনে ভর্তি করানোর পর সকাল ৭টা ২০মিনিটে ডাক্তার অমল কুমারের তত্ত্বাবধানে তাকে ওটিতে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রোগীর প্রচুর রক্তক্ষরন হচ্ছিল। সকাল ১১টায় অত্র হাসপাতালের ডাক্তারগন বোর্ড মিটিংয়ে বসে জানান, রোগীর রক্তক্ষরন হচ্ছে, তার জরায়ূ কেঁটে ফেলতে হবে। এ সময় আমরা ৭ ব্যাগ রক্ত জোগাড় করলে পরে দুপুর ২টায় জানানো হয় রোগীনির মৃত্যু হয়েছে।’

নিহত প্রসূতি সাবিহা তাসমিয়া ঝুমার দুই বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে।

বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ইন্সপেক্টর (অপারেশন) জয়নাল আবেদীন জানান, খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসে ডাক্তার সহ ৫ জনকে আটক করেছি। নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ ১’শ শয্যাবিশিষ্ট (ভিক্টোরিয়া) জেনারেল প্রেরন করা হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুুতি চলছে।

ঊলে¬খ্য, এর আগেও এই হাসপাতালে আরো কয়েকবার এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে বলে জানা যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here