নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: কথায় আছে, “পারিবোনা একথাটি বলিও না আর, একবার না পারিলে দেখ শতবার।” ঠিক যেন সেই পথেই অগ্রসর হতে চলেছেন মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান।
যিনি গত বছরের ২২ ডিসেম্বর প্রথমবারের মত দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় মেয়াদের নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর কাছে প্রায় ৭৭ হাজার ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হয়েও মনোবল হারাননি।

সিটি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দীতা করে পরাজিত হয়েছেন তো কি হয়েছে, এখন আগামীতে অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পুনরায় নারায়ণগঞ্জ-৫ (সদর-বন্দর) আসন থেকে ধানের শীষের মনোনয়ন প্রত্যাশায় জোরালো ভাবে প্রস্তুতি নিতে শুরু করে দিয়েছেন এড. সাখাওয়াত হোসেন খান।

নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুন মামলার বাদীপক্ষের আইনজীবী হিসেবে ব্যাপক পরিচিত এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বিগত বছর সিটি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন স্থানে চালানো প্রচারনাকে পুঁজি করে এখন আবারো চষে বেড়াতে শুরু করেছেন সদর-বন্দরের মাঠ-ঘাট।

তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের চাঙ্গা করতে আর ‘ধানের শীষের’ পক্ষে গণজোয়ার উঠাতে চালিয়ে যাচ্ছেন প্রয়াস।

আর এড. সাখাওয়াত হোসেন খানের এহেন কর্মকান্ডে রীতিমত নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাবেক সাংসদ এবং আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী এড. আবুল কালামের হয়ে গেছে ঘুম হারাম।

যার ফলশ্রুতিতে ঈষান্বিত হয়ে সম্প্রতি সাখাওয়াতের বিরুদ্ধে দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের অভিযোগে কেন্দ্রে লিখিত নালিশ করেন মহানগর বিএনপির সভাপতি এড. আবুল কালাম।

কিন্তু তারপরেও পথচ্যুৎ হয়নি এড. সাখাওয়াত হোসেন খান। শহর থেকে বন্দর, ওয়ার্ড থেকে গ্রাম পর্যন্ত গিয়ে দলীয় বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করে দলীয় নেতাকর্মীদের করে তুলছেন উজ্জীবিত বলে মন্তব্য করেন তৃণমূল।

আর গত বছর সিটি নির্বাচনে খোদ বিএনপির নেতাকর্মীদেরই ঠিক ভাবে ভোট না দেয়ার কারনে মেয়র পদে নির্বাচন করে এড. সাখাওয়াত হোসেন খান পরাজিত হলেও আগামীতে সংসদ নির্বাচনে তৃণমূল নেতাকর্মীরা রাজপথের এই লড়াকু নেতার পাশে থেকে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে যাবেন বলে অভিমত ব্যাক্ত করেন তৃণমূল পর্যায়ের একাধিক নেতা।

উল্লেখ্য, গত বছর ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর প্রথমবারের মত দলীয় প্রতীকে অনুষ্ঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের দ্বিতীয় মেয়াদের নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের মেয়র প্রার্থী ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর কাছে ৭৭ হাজার ৯০২ ভোটের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত হন বিএনপির মনোনীত মেয়র প্রার্থী এড. সাখাওয়াত হোসেন খান।

সদর, বন্দর ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানা নিয়ে গঠিত নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের অধীনস্থ ২৭ টি ওয়ার্ডের মোট ১৭৪টি ভোটকেন্দ্রে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী ডা: সেলিনা হায়াত আইভী ‘নৌকা’ প্রতীকে পেয়েছিলেন ১ লাখ ৭৪ হাজার ৬০২ ভোট। আর ‘ধানের শীষ’ প্রতীকে ৯৬ হাজার ৭০০ ভোট পেয়েছিলেন বিএনপি মনোনীত পরাজিত প্রার্থী এড. সাখাওয়াত হোসেন খান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here