নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ফের কটাক্ষ করলে রফিউর রাব্বীর জি¦হ্বা টেনে ছিড়ে ফেলা হবে বলে হুঁশিয়ারী উচ্চারন করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড. আবু হাসনাত মো: শহিদ বাদল।
শনিবার (৯ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টায় শহরের ২নং রেল গেইট সংলগ্ন দলীয় কার্যালয়ে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ আয়োজিত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্পর্কে বিব্রতকর তথ্য উপস্থাপনের প্রতিবাদে বিক্ষুদ্ধ প্রতিবাদ সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এই হুঁশিয়ারী উচ্চারন করেন।

ভিপি বাদল বলেন, ‘এই নারায়ণগঞ্জের মাটি জননেত্রী শেখ হাসিনার ঘাঁটি। এই মাটিতে যদি কেউ শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটাক্ষ করে তাহলে এর পরিনতি হবে ভয়াবহ।’

তিনি আরো বলেন, ‘গত ৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে দাঁড়িয়ে রফিউর রাব্বী নাকি বলেছেন প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার কারনেই নাকি ত্বকী হত্যাকান্ডের বিচার বন্ধ রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সম্পর্কে কুটক্তি করার এতো বড় দুঃসাহস কোথায় পেল। সে কি পাগল হয়ে গেলেন। এই পাগল সেই পাগল যে কিনা কোটি কোটি টাকার চেক জালিয়াতি করে মামলা খায়।’

বাদল বলেন, ‘আমরা নারায়ণগঞ্জে ত্বকী হত্যাকান্ড সহ সকল হত্যাকান্ডেরই বিচার চাই। সাধারন নিয়মে যদি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকারীদের বিচার এ দেশে হয় তাহলে সকল হত্যাকান্ডেরও বিচার একই নিয়মেই হবে। পাশাপাশি শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটাক্ষকারী রফিউর রাব্বীর বিচারও আমরা চাই। যারা শহীদ মিনারকে অপবিত্র করে তাদেরকে নারায়ণগঞ্জের মাটি থেকে বিতারিত করা হবে আপনারা সকলে প্রস্তুুত থাকুন।’

তিনি আরো বলেন, ‘রফিউর রাব্বী তার ছেলের হত্যা নিয়ে রাজনীতি করছেন। আমরা বলতে চাই পাগলের রাজনীতিতে মেতে উঠেছেন রফিউর রাব্বী। ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করাই তার লক্ষ্য। কথায় কথায় বলেন ওসমান পরিবার। আমরা বলতে চাই ত্বকী হত্যার সাথে যেই জড়িত থাক না কেন তারই বিচার চাই আমরা। রফিউর রাব্বী আপনার শেল্টারদাতা কারা নারায়ণগঞ্জবাসী তা জানে। আর যদি জননেত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে একটা কটাক্ষ করা হয় তাহলে আপনার জি¦হ্বা টেনে ছিড়ে ফেলা হবে। আর এর দায়ভার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নিতে হবে। যদি কোন ধরনের অঘটন ঘটে তাহলে পুলিশকে এর দায়িত্ব নিতে হবে।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ এর কেন্দ্রীয় কিমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ডা: আবু জাফর চৌধুরী বিরু বলেন, ‘দেশের ৬৪টি জেলায় কোন কোন লোক মারা গেল তা জানবার কথা নয় আমাদের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার। রফিউর রাব্বীকে বলতে চাই বাংলাদেশে যদি প্রচলিত আইনে বিচার হয়ে থাকে তাহলে কি করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আপনার ছেলের বিচার কাজ বন্ধ রেখেছে। আমাদের নেত্রীর বিরুদ্ধে কটাক্ষ করে কথা বললে আমরা মেনে নিব না আমরা সোচ্চার হবো।’

অনুষ্ঠানে এ সময় আরো বক্তব্য রাখেন, জেলা কার্গো শ্রমিকলীগের সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম, বঙ্গবন্ধু আইনজীবী পরিষদের দপ্তর সম্পাদক এড. রানা, মহানগর আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিন, বঙ্গবন্ধু ছাত্র আইন পরিষদ এর সভাপতি মাহমুদুল হাসান সুমন, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি একরামুল হক, সোনারগাঁ থানা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি মজিবর রহমান, মহান নগর তাতীলীগ সভাপতি মুকুল হোসেন রাসেল, জেলা ব্যাংক ফেডারেশন এর সভাপতি আব্দুল কাদির, ৭১এর চেতনা মঞ্চের সভাপতি এম এ রাসেলসহ প্রমূখ।

উল্লেখ্য, গত ৮ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ত্বকী হত্যার বিচারের দাবীতে সন্ত্রাস নির্মূল ত্বকী মঞ্চের মোমশিখা প্রজ্জ্বলন কর্মসূচীতে ত্বকীর বাবা রফিউর রাব্বী বলেছেন, ‘আসলে প্রধানমন্ত্রী চাইলে যেকোনো বিচার হয় আর তিনি না চাইলে বিচার হয় না। তিনি প্রায়ই বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়কারীদের প্রতি বিষোদগার করেন। অথচ তিনি ত্বকী হত্যাকরীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন।’

শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ্য করে রাব্বী বলেন, ‘অপরাধীদের পক্ষালম্বন করে দেশ চালানো যায় না। ত্বকীর খুনীরা যেমন বিচারের আওতায় আসবে তেমনি যারা বিচার বন্ধ রাখার চেষ্টা করছে তাদেরও বিচারের আওতায় আসতে হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here