নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জের বিএনপি নেতাদের মধ্যকার মাঠের রাজনীতির দ্বন্দ আর কোন্দলের ছিটেফোটাও দেখা যায়না আদালতে মামলার হাজিরা দিতে এলে, বরং তাদের হাতে হাত দেয়া হাস্যোজ্জল ছবি দেখে যে কেউ মনে করতে পারে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি পুরোটাই ঐক্যবদ্ধ।

যেমনটা দেখা গেছে মঙ্গলবার (৩১ অক্টোবর) নারায়ণগঞ্জ আদালত প্রাঙ্গণে হেফাজতের একটি মামলায় হাজিরার সময়। অথচ আদালত থেকে বাইরে বেড়িয়ে গেলেই একজন আরেকজনের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেয়াসহ নানা ধরনের আক্রমনাত্মক আচরন করে থাকেন। আর নারায়ণগঞ্জ বিএনপি নেতাদেও এ ধরনের দ্বিমূখী আচরন থেকে বেড়িয়ে এসে সুস্থ্য ধারার রাজনীতি চর্চার আহবান জানিয়েছে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূল।

মঙ্গলবার হেফাজতের একটি মামলায় হাজিরা দিতে নারায়ণগঞ্জ আদালতে এসেছিলেন বিএনপি’র চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকার, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান, সহ সভাপতি আবদুল হাই রাজু, জান্নাতুল ফেরদৌস, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এটিএম কামাল, সাবেক এমপি মো: গিয়াসউদ্দিন, বিএনপি নেতা সফর আলী ভূইয়াসহ অনেক নেতাকর্মী। এছাড়াও পৃথক মামলায় হাজিরা দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপি’র সভাপতি এড. আবুল কালাম ও বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নজরুল ইসলাম আজাদ। আদালতের কাজ শেষে সকলেরই হাতে হাত ধরে হাসি মুখে বাইরে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে পোজ দিয়েছেন।

ঘটনাসূত্রে প্রকাশ, নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি’র কমিটি গঠন নিয়ে এবং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন ইস্যুতে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি নেতাদের মধ্যেকার দ্বন্দ চরম আকার ধারন করেছে। কমিটিতে পদ না পেয়ে জেলা ও মহানগর বিএনপি’র গুষ্ঠি উদ্ধার করছেন এড. তৈমূর আলম খন্দকার ও মো: গিয়াসউদ্দিন। এমনকি সোনারগাঁয়ে একটি জনসভায় দলীয় মহাসচিবের সামনেই কমিটিকে এক হাত নিয়েছেন তারা। তাছাড়া জেলা ও মহানগর বিএনপি’র কর্মীসভায়ও আমন্ত্রণ জানানো হয়সি তৈমূর ও গিয়াসউদ্দিনকে। এ নিয়েও তৈমূরের বাসায় অনুষ্ঠিত সদস্য সংগ্রহ অনুষ্ঠানে জেলা ও মহানগর কমিটির বিষেদাগার করেন নেতারা। নারায়ণগঞ্জ জেলা ও মহানগর বিএনপি’র কমিটিতে রাজপথের সংগ্রামী নেতাদেও বদলে সুবিধাবাদী নেতাদের পদ দেয়ায় দ্বন্দ আরো চরম আকার ধারন করে।

সূত্র মতে, নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন আসনে আগামী সংসদ নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে জেলা ও মহানগর কমিটির বিরোধ রয়েছে। রূপগঞ্জের আসনে বিএনপি’র মনোনয়ন প্রত্যাশী এড. তৈমূর আলম খন্দকার ও কাজী মনিরুজ্জামানের সাথে দ্বন্দ দীর্ঘদিনের। জাতীয় বা দলীয় কর্মসূচি তারা কখনো একসাথে পালন করেন না। কিন্তু আদালতে এলে সে দ্বন্দেও লেশ মাত্রও চোখে পরে না এসব নেতাদের। তখন তাদের হাতে হাত রেখে হাসি মুখের ছবি পীড়া দেয় নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূলের মনে। নেতাদের এসব দ্বিমূখী কার্যকলাপে তৃণমূলের মনে ধারনা জন্মায়, তবে কি কর্মীদের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করে তলে তলে তারা ঠিকই একসাথে দিন যাপণ করেন!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here