নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব একেএম শামীম ওসমান বলেছেন, ‘মসজিদে দাঁড়িয়ে আমাদেরকে সারোয়ারের জন্য দোয়া করতে হবে এটা ভাবাটা আমাদের জন্য অনেক কষ্টের। একটা সুদর্শন, অমায়িক আর সাহসী ছেলে ছিলেন সারোয়ার। আমরা জানি না আমরা ভাল আছি না, ওপারে সারোয়ার ভাল আছে। আমরা এই দুনিয়াতে পার্মানেন্ট আছি, না কিসে পার্মানেন্ট আছে সেটা আল্লাহ্ই ভালো জানেন।’

সোমবার (৩০ অক্টোবর) বাদ আছর শহরের উত্তর চাষাঢ়া রামবাবুর পুকুর পাড় জামে মসজিদে শহর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক তুখোড় নেতা গোলাম সারোয়ারের দ্বিতীয় মুত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে পরিবার আয়োজিত দোয়া মাহ্ফিলের পূর্বে স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

শামীম ওসমান বলেন, ‘আল্লাহ তায়াতা সব সময় ধৈর্য্যশীলদের পছন্দ করেন। কখন কাকে যেতে হবে কেউ তা জানে না। আমাদের ডে বাই ডে ভাল কাজের সংখ্যা বাড়াতে হবে। আমাকে দেখার জন্য আমার আল্লাহ্ই যথেষ্ট। সারোয়ারকে আমি আমার ছেলের মত করে দেখতাম। আমার দলের নেতারা কিংবা অন্যান্য দলের নেতারা শুধুই পদ চায়। রাজনীতি এখন আর ত্যাগে নয়, ভোগে পরিনত হয়েছে। অহংকার করে নয়, মাথানত করে চললে আল্লাহ্ খুশি হন। সারোয়ারের জন্য আপনারা সকলে প্রাণ ভরে দোয়া করবেন যেন আল্লাহ্ তাকে ভাল রাখেন।’

এসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন গোলাম সারোয়ারের ছোট ভাই মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাকিরুল আলম হেলাল, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু, মহানগর আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি কমান্ডার গোপীনাথ দাস, সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ মজিবুর রহমান, ফতুল্লা থানা আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক আলহাজ¦ এম শওকত আলী, নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, মহানগর সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শেখ সাফায়েত আলম সানি, সাধারণ সম্পাদক মিনহাজুল ইসলাম রিয়াদ, মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান মুন্না, নাসিক কাউন্সিলর কবির হোসাইন, আলহাজ¦ মতিউর রহমান মতিসহ মরহুমের পরিবারবর্গ।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের এই দিনে ঢাকার ইবনে সিনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তুখোড় এই যুবলীগ নেতা। ১৯৮৮ থেকে ১৯৯৬ সাল পুরোটা সময় জুড়েই রাজনীতির মাঠে সক্রিয় ছিলেন এই নেতা। নব্বই দশকে শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও রাজপথে সক্রিয় ছিলেন গোলাম সারোয়ার। এসময় গোটা জেলার রাজনীতির মাঠে তার নাম ডাক ছড়িয়ে পড়ে। তবে ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর থেকেই রাজনীতির বাইরে চলে যান তিনি। পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসালেও শারীরিক অসুস্থ্যতার কারণে রাজনীতিতে সক্রিয় হননি তিনি। জীবদ্দশায় গোলাম সারোয়ার সারোয়ার মস্তিস্ক, কিডনী রোগে ভুগছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here