নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: করোনা ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে দেশব্যাপী চলা লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্থ নিম্ন আয়ের মানুষের পাশে সরকারের পাশাপাশি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন অনেক ব্যক্তি ও সংগঠন। নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের অসহায় কর্মহীন মানুষের পাশে ্এস দাড়িয়েছেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা এড. তৈমূর আলম খন্দকার এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু। কিন্তু রূপগঞ্জ বিএনপির আরেক প্রভাবশালী নেতা সাবেক জেলা বিএনপির সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামানকে এই লকডাউনের দুই মাসে কোথাও খুঁজে পায়নি বিএনপি নেতাকর্মী কিংবা রূপগঞ্জের সাধারণ মানুষ। বিশাল ব্যবসায়ী এই বিএনপি নেতা করোনা ছড়িয়ে পরার পর থেকেই আত্মগোঁপনে রয়েছেন বলে জানা গেছে, জনগনকে সচেতন করা কিংবা দুস্থ্য অসহায় মানুষকে কিছুটা খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করার কাজে একদিনের জন্য দেখা মিলেনি সাবেক এই জেলা সভাপতির।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ-১ (রূপগঞ্জ) আসন থেকে গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন চেয়েছিলেন এড. তৈমূর আলম খন্দকার, কাজী মনিরুজ্জামান ও দিপু ভূইয়া। মনোনয়নের চিঠিও পেয়েছিলেন তারা তিনজন কিন্তু দলীয় প্রতীক ধানের শীষে নির্বাচন করার সুযোগ পান কাজী মনির। নির্বাচনে ভরাডুবির পর আর তাকে প্রকাশ্যে খুব একটা দেখা যায়নি। আর করোনার প্রাদূর্ভাব শুরু পর থেকে পুরোপুরি নিরুদ্দেশ হয়ে যান কাজী মনির। তার দেখা সাধারণ মানুষ কিংবা নেতাকর্মীরা কেউ এখনো পায়নি।

অপরদিকে লকডাউন শুরুর পর থেকে রূপগঞ্জের অসহায় সাধারণ মানুষের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন এড. তৈমূর ও দিপু ভূইয়া। রূপগঞ্জের এসব খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ যারা করোনার কারনে বেকার হয়ে পরেছেন তাদের ঘরে ঘরে খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিচ্ছেন। তাছাড়া করোনার ভয়াবহতা থেকে রক্ষা পেতে সকলের মাঝে সচেতনতা তৈরী করছেন এবং মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here