নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি : সোনারগাঁও থানায় ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১৮ ফেব্রুয়ারী ( বৃহস্পতিবার ) বিকেলে থানা প্রাঙ্গনে এ আয়োজন করা হয়। থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রফিকুল ইসলাম’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ জায়েদুল আলম।

সোনারগাঁ থানার পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত ) খন্দকার তবিদুর রহমানের সঞ্চালনায়, থানা মসজিদের মুয়াজ্জিন হাফেজ আব্দুল লতিফের কোরআন তেলাওয়াত’র মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করা হয়। এরপর ওপেন হাউস ডে অনুষ্ঠানে আগতরা তাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা তুলে ধরেন।
তারা বলেন, সোনারগাঁ থানার ওসি রফিকুল ইসলাম আসার পর রাতে জনগণের নিরাপত্তায় তৎপর ভূমিকা পালন করছেন। কিন্তু বর্তমানে আমাদের এখানে পুলিশের গাড়ির হর্ণ অন্য গাড়িতে বাজানো হয়। চৈতী গার্মেন্টসের সামনে দিয়ে কালো হাইছ গাড়ি দিয়ে প্রতিদিন মাদক বিক্রি করা হয়।

সকল অভিযোগ’র প্রেক্ষিতে প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে মোহাম্মদ জায়েদুল আলম বলেন, ‘সাপ-লুডু খেলার মতো ধরলাম আর জামিন পেলো লাভ নেই। ১০০ এর মধ্যে ১ জন মাদক হলে ধরা সম্ভব। মাদক নির্মূলে ইমাম, শিক্ষক, জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দদের নিয়ে সামাজিক প্রতিরোধই প্রধান। যদি কেউ মাদক খায় বা বিক্রি করে, সে চেয়ারম্যান বা মেম্বারের ছেলে হোক তাকে ছাড় দেয়া হবে না। সমাজটা অন্য রকম, আগের সালাম-কালাম নাই। আধুনিক সমাজে চুলের কাটিং’র জন্য আপনারা সামাজিক ভাবে বাজার কমিটি প্রতিরোধ করেন। বাড়িও করে ডুপ্লেক্স, চুলও কাটে ডুপ্লেক্স। আধুনিক বাবা-মা, আধুনিক স্ট্যাইল, কয়েকদিন পর ধরে ইয়াবা। অনেক বাবা-মাও সন্তানকে নিয়ে এসে বলে আধুনিক কাটিং করে দেয়ার জন্য। আমাদের সকলের সম্মিলিত ভাবে কাজ করতে হবে। রূপার, পিতলের মানুষ দিয়ে সোনার বাংলা হবে না। সোনার মানুষ লাগবে। সোনার মানুষ হতে ভালো সমাজ লাগবে। আপনারা সকলে সমাজের একত্রিত হয়ে এলাকা মাদকমুক্ত করার উদ্যোগ নেন। সমাজ পরিবর্তন করতে হবে, না হলে কেয়ামতের আলামত দেখা দিবে। আমার পুলিশ সদস্যদের আমি সামাল দিবো, আপনাদের সন্তানদের আপনারা সামাল দেন। আমি দায়িত্ব নিয়ে বলতে চাই, আমার কনস্টেবল থেকে ওসি পর্যন্ত বেশিরভাগই ভালো। আপনাদেরও ভালো হতে হবে আমাদেরও। আমি কোন পেশি শক্তির ভয় পাই না, মস্তান-গুন্ডা দেখি না। খারাপদের আমার কাছে স্থান নেই। আমি সবাইকে সমান অগ্রাধিকার দেই, সবাই সমান আমার কাছে। সবচেয়ে ভালো পুলিশ সোনারগাঁয়ে বর্তমানে। আমরা সবাই মিলে সচেতনতা গড়ে তুললে সোনারগাঁকে মাদকমুক্ত করতে পারবো। আমার পুলিশ সদস্যরা রাত, দিন আপনাদের সেবা দিচ্ছে। মাঝে মধ্যে এক, দুই, তিন রাত তারা না ঘুমিয়ে আপনাদের সেবা দিচ্ছে। আমি বিশ্বাস করি একদিন মাদকমুক্ত সোনারগাঁ গড়ে তুলতে পারবো।

সভাপতির বক্তব্যে থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, পুলিশ সুপার স্যার দিক নির্দেশনা দিয়েছেন। আপনারাও সমস্যা তুলে ধরেছেন। আমি বলতে চাই ইনশাআল্লাহ স্যার আগামীতে এ সমস্যার কথা আপনাকে শুনতে হবে না। আমি প্রতিটি ইউনিয়নে ডাকাতি রোধে রাতে ডিফেন্স পার্টি গঠন করেছি। তাদের সাথে আমিও রাতে সময় দিয়েছি। আমাদের এই সোনারগাঁ সোর্স মুক্ত করেছি। এসপি জায়েদুল স্যারের নেতৃত্বে সোনারগাঁকে মাদক মুক্ত করা হবে।

অনুষ্ঠানে জেলার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মাহিন ফরাজী, সহকারী পুলিশ সুপার (প্রবেশনার) শামীম হোসেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা ওসমান গনীসহ সোনারগাঁয়ের বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা উপস্থিত ছিলেন।
 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here