নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ক্ষমতাসীণ দল আওয়ামীলীগের দুই প্রভাবশালী জনপ্রতিনিধি এমপি শামীম ওসমান ও মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভীর মধ্যকার সাপে-নেউলে সম্পর্ক বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হলেও দলের স্বার্থে মান অভিমান ভুলে অনেকবারই ছোট বোন আইভীকে ভালবাসার সহিত কাছে টেনে সম্পর্কের উন্নয়ণ ঘটানোর প্রয়াস চালিয়েছিলেন শামীম ওসমান।
একমাত্র পুত্রের বিয়ের আমন্ত্রণ জানাতে কার্ড নিয়ে ঘন্টা ব্যাপী বাড়ীর নীচে অবস্থান করাসহ আইভীকে নিয়ে লং ড্রাইভে যাওয়ার মনোভাবও ব্যক্ত করেছিলেন শামীম ওসমান। রাজনীতির মাঠে ভুল পথে চলা ছোট বোন আইভীকে এজন্য মন খুলে কিছু বলার লক্ষ্যে শামীম ওসমান নিজ উদ্যোগে নগরীতে সভা সমাবেশও করেছিলেন। যেখানে তিনি ছোট বোনের উপস্থিতির মাধ্যমে দ্বন্দের পরিবর্তে সুসম্পর্কের বহি:প্রকাশ প্রমাণের অভিপ্রায়ও ব্যক্ত করেছিলেন।

কিন্তু চেষ্টা প্রত্যাশা স্বত্ত্বেও গালি হজম আর অপমানিত হওয়া ছাড়া আইভীর কাছ থেকে ভাল ব্যবহার কখনোই পাননি শামীম ওসমান বলে দাবী করেছেন তার অনুসারীরা।

তাদের মতে, আইভী মুখে দলের মধ্যে কোন বিভেদ নেই দাবী করে নেতৃত্বের প্রতিযোগিতা থাকার কথা বললেও বাস্তবে শামীম ওসমানকে গডফাদার বলে গালি দেয়ার পাশাপাশি ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারকে নিয়ে বিদ্রুপ মন্তব্য করে এবং সম্প্রতি শামীম ওসমানের পুত্র অয়ন ওসমানের বিয়ের খরচ নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে আইভী নিজেই শামীম ওসমানের সাথে শত্রুর মত আচরন করে যাচ্ছেন।

এমনকি সর্বশেষ হকার ইস্যুতে সংঘর্ষের ঘটনায় নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের এমপি ও মহানগর আওয়ামীলীগের সদস্য শামীম ওসমানের পরীক্ষিত কর্মী নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে থানায় হত্যা চেষ্টার মামলা দায়েরের লক্ষে অভিযোগ পত্র দাখিল করে ভাই বোনের সম্পর্কন্নোয়ণের পরিবর্তে শত্রুতা জিইয়ে রাখার প্রয়াস চালিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মেয়র ও নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা: সেলিনা হায়াত আইভী বলে দাবী করেছেন আওয়ামীলীগের তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

আর তাই তৃণমূলের মতে, শামীম ওসমান ছোট বোন আইভীর ভবিষ্যৎ রাজনীতি অন্ধকার দেখতে পেয়েছেন বলেই শংকা প্রকাশ করে বলেছেন, “আওয়ামীলীগে নেতৃত্বের কোন্দল থাকতে পারে, ঝগড়া হতে পারে, তার মানে এই না যে আমি আপনার দুশমন, আপনি আমার দুশমন। এগুলো বলতে খারাপ লাগে। আমি কষ্ট পাই, দু:খ পাই, লজ্জা পাই। যারা আওয়ামীলীগের কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দেয়, নির্যাতন করে, আগামীতে তাদের ভবিষ্যৎ খুব একটা ভালো হবে না।”

শামীম ওসমান দাবী করে এও মন্তব্য করেন, “এখন চামচিকা পাখি হতে চায়, কাউয়া ময়ূর হতে চায়, গালি দেয়। আমাকেও গালি দেয়। এগুলো এখন আর গায়ে লাগে না, অভ্যস্ত হয়ে গেছি। কিন্তু কাউকে গালি দিয়ে বড় হওয়া যায় না, বরং ভালোবেসে কাছে টানতে হয়।”

যদিও শামীম ওসমান গত ২৮ মার্চ রূপগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামীলীগ আয়োজিত স্বাধীনতা দিবসের আলোচনা সভায় এমন বক্তব্য প্রদানকালে কারো নাম প্রকাশ করেননি, কিন্তু তৃণমূলের দাবী তিনি দলের যেসকল নেতাদের উদ্দেশ্যেই এহেন মন্তব্য করেছেন, তারমধ্যে অন্যতম হচ্ছেন নাসিক মেয়র আইভী!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here