নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ শামীম ওসমানই হচ্ছেন নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের কান্ডারী পুরুষ, এমনটা আবারও প্রমাণিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন তৃণমূল নেতৃবন্দ। আর তার কাছে রাজনীতিতে নাকি ‘ধরাশাঁয়ী’ হয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন মেয়র ডা: সেলিনা হায়াত আইভী এবং মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ আনোয়ার হোসেন।
কারন হিসেবে তৃণমূল নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘সাংসদ শামীম ওসমানের আহ্বানে যে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের লাখো নেতাকর্মী একত্রিত হতে পারেন তার উদাহরন অতীতের ন্যায় গত ১৮ নভেম্বর রাজধানীতে তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন। কেননা, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কো কর্তৃক স্বীকৃতি পাওয়ায় এদিন সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সাংসদ শামীম ওসমানের পক্ষে হাজার হাজার নেতাকর্মী শো ডাউন করে রাজধানীর রাজপথ কাঁপিয়ে দিয়েছেন।’

‘পক্ষান্তরে আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে নারায়ণগঞ্জ জেলার ৫টি আসনেই ‘নৌকার’ প্রার্থী দাবী করে আসার মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা: সেলিনা হায়ত আইভী রাজনীতিতে সদ্য সক্রিয় হতে থাকলেও কার্যত ১৮ নভেম্বরের বৃহৎ সমাবেশে তিনি যেমন নিজে যোগদান করেননি, তেমনি তারপক্ষে কোন নেতাকর্মীকেও সমাবেশস্থলে যোগদান করতে দেখা যায়নি। আর তার নিকটতম যে কয়েকজন নেতৃবৃন্দই সমাবেশে যোগদান করেছিলেন, তারা জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হাইয়ের নেতৃত্বেই কেবল সমাবেশে যোগদান করেছিলেন।’

‘অপরদিকে, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ আনোয়ার হোসেন গণপরিবহনের অজুহাতে দলীয় নেতাকর্মীদের ট্রাক যোগে সমাবেশস্থলে পাঠিয়ে নিজে এসি গাড়ীতে ঢাকায় যেয়ে সমালোচনার জন্য দিয়েছেন। যার ফলে তেমন নেতাকর্মীর সমাগম তিনি সমাবেশস্থলে ঘটাতে পারেননি। আর দোষ চাপিয়ে দিয়েছেন গণপরিহবন মালিকদের উপর।’

এছাড়া, বিগত সময় গুলোতেও দেখাগেছে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে গত ১২ আগষ্ট শামীম ওসমানের উদ্যোগে নগরীতে অনুষ্ঠিত বৃহৎ শোক র‌্যালী বৈরী আবহাওয়ার মধ্যেই জনসমুদ্রে পরিনত হয়েছিল।

তারপূর্বে গত বছর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ আনোয়ার হোসেন যখন নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার প্রত্যাশায় পৌর ওসমানী স্টেডিয়ামে বিশাল জনসভা করেছিলেন, তখন সাংসদ শামীম ওসমানের ডাকেই গোটা জেলা থেকে হাজার হাজার নেতাকর্মী সমাবেশস্থলে এসে সেদিন যোগ দিয়েছিলেন।

এরপর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে যখন জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা: সেলিনা হায়াত আইভেিক আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল, তখনও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে অতীত বিভেদ ভুলে শামীম ওসমান তার হাজার হাজার অনুগামী নেতাকর্মীদের আইভীর পক্ষে ‘নৌকার’ গণজোয়ার সৃষ্টিতে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে পাঠিয়েছিলেন।

তাই সর্বোপরি নারায়ণগঞ্জে আওয়ামীলীগ মানেই শামীম ওসমান, আর তার বিকল্পও অদ্যবধি কেউ হতে পারেনি বলে দাবী করেন তৃণমূল নেতৃবৃন্দ।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here