নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: এলাকার যুব সমাজকে মাদকের অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে স্থানীয় সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানাধীণ মাসদাইর পতেঙ্গার মোড় এলাকাবাসী। শামীম ওসমান টানবাজারের পতিতা পল্লি উচ্ছেদ করে নারায়ণগঞ্জকে কলঙ্কের অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে পারলে আজ তারই উদ্যোগ ও সহযোগিতায় সমাজের সবচেয়ে বড় অভিশাপ মাদক থেকেও এলাকার যুব সমাজকে রক্ষা করা যাবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন এলাকাবাসী।

শুক্রবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ফতুল্লা থানাধীণ মাসদাইর পতেঙ্গার মোড় এলাকায় মাদক বিরোধী সমাবেশে এই সহযোগিতা কামনা করেন এলাকাবাসী।

মাদক বিরোধী সমাবেশে বক্তারা বলেন, মাসদাইরের পতেঙ্গা মোড় বললে রাতে রিক্সাওয়ালারাও আসতে চায় না। সমগ্র নারায়ণগঞ্জে মাদকের অন্যতম স্পট হিসেবে পরিনত হয়েছে এই পতেঙ্গার মোড়। নারায়ণগঞ্জের নানা প্রান্ত থেকে মাদকসেবীরা এখানে আসে মাদক ক্রয় ও সেবনের জন্য। আর এই মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদেও কারনে এলাকার যুব সমাজ মাদকের করাল গ্রাসে নিমজ্জিত হচ্ছে, ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে আমাদের আগামী প্রজন্ম। আর আমাদের ঘরে বসে থাকার সময় নেই। আমাদেরকে জেগে উঠতে হবে এবং সকলে মিলে ঐক্যবদ্ধভাবে এদের বিরদ্ধে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। আর এ প্রতিরোধে আমরা আমাদের স্থানীয় সংসদ সদস্য একেএম শামীম ওসমানের সহযোগিতা ও উপস্থিতি কামনা করছি।

বক্তারা আরো বলেন, এক সময় নারায়ণগঞ্জবাসীর জন্য কলঙ্কের অভিশাপ হিসেবে ছিলো টানবাজার পতিতা পল্লি। ১৯৯৮ সালে স্থানীয় সাংসদ একেএম শামীম ওসমানের নেতৃত্বে সমস্ত নারায়ণগঞ্জবাসী ঐক্যবদ্ধ হয়ে শত বছরের কলঙ্ক এই পতিতাপল্লি উচ্ছেদ করে নারায়ণগঞ্জকে কলঙ্কমুক্ত করেছিলো। আমরা মাসদাইরের পতেঙ্গা মোড় এলাকাবাসী বিশ^াস করি, ১৯৯৮ সালে পারলে ২০১৭ সালেও পারবেন এমপি শামীম ওসমান। আমরা এলাকাবাসী আপনার নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জ থেকে মাদক ব্যবসায়ীদের উচ্ছেদ করে নারায়ণগঞ্জকে মাদকের অভিশাপ থেকে মুক্ত করতে পারবো।

এ সময় ফতুল্লা থানাধীণ এনায়েতনগর ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার রোজিনা আকতার মাদকের আগ্রাসের জন্য ফতুল্লা থানার পুলিশের অবহেলা ও দূর্নীতিকে দায় করে বলেন, মাসদাইর পতেঙ্গা মোড় এলাকায় প্রকাশ্যেই মাদক ব্যবসা চলছে। পুলিশকে ম্যানেজ করেই তারা এ ব্যবসা পরিচালনা করছে। মাঝে মাঝে দুএকটা মাদক ব্যবসায়ী ধরা পরলেও টাকার বিনিময়ে তাদের ছেড়ে দিচ্ছে পুলিশ। আর তাই পুলিশ প্রশাসন যতদিন উদ্যোগী না হবে, ততদিন এলাকা থেকে মাদক ব্যবসা দুর করা যাবে না। তাই আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে আমাদের সাংসদ শামীম ওসমানের কাছে এর প্রতিকার চাই। আমরা আর কোন যুবককে মাদকের ছোবলে ধ্বংস হতে দেবো না, আর কোন মায়ের বুকফাটা আর্তনাদ শুনবো না। আমরা একটি সুস্থ্য সুন্দর সমাজ ফিরে পেতে চাই।

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক নিজাম মুন্সি, কোষাধ্যক্ষ বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, স্থানীয় মুরুব্বী গুলজার হোসেন, আ: হক মুন্সি, কবীর হোসেন কালন, আ: মান্নান, মো: শামীম, বজলুর রহমানসহ এলাকার যুব সমাজের প্রতিনিধিরা।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here