নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জের শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে লাঞ্ছনার ঘটনায় ঢাকা মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন পেয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের জাতীয়পার্টির সাংসদ সেলিম ওসমান।
রবিবার (১৪ মে) সকালে ঢাকার মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালত ২৩ মে ওই জামিন আবেদনের শুনানীর দিন ঠিক করেছেন।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলী আনোয়ারুল কবীর বাবুল জানান, ‘শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে মারধর ও মানহানির অভিযোগ আমলে নিয়ে আদালত নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের এমপি সেলিম ওসমানকে ১৪ মে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দিয়েছিলেন ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জেসমিন আরা বেগম। নির্দেশ অনুযায়ী রবিবার সেলিম ওসমান আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। তাঁর আইনজীবীরা আদালতকে জানিয়েছেন, ৮ মে হাইকোর্টের দেওয়া ১৫ দিনের জামিনে আছেন সেলিম ওসমান। তাই তিনি বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান। আদালত ২৩ মে ওই আবেদনের ওপর শুনানীর দিন ঠিক করেন।’

ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে গত বছরের ১৩ মে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার কল্যাণদীতে পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে তারই স্কুলের প্রাঙ্গণে লাঞ্ছিত করা হয়। পরে এমপির নির্দেশে তাকে স্কুল থেকে বের করে পুলিশের হেফাজতে দেওয়া হয়। ওই ঘটনা নিয়ে সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন আদালতের নজরে এলে গত বছরের ১৮ মে হাইকোর্ট স্বঃপ্রণোদিত হয়ে রুল জারি করেন।

দেশজুড়ে ওই ঘটনার প্রতিবাদ ও দোষীদের বিচার দাবি করে শিক্ষক-ছাত্রসহ বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষ। এরই মধ্যেই ওই শিক্ষককে চাকরিচ্যুত করে স্কুল কর্তৃপক্ষ। ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও উঠে সমালোচনার ঝড়।

আদালতের নির্দেশে নারায়ণগঞ্জের পুলিশ একটি প্রতিবেদন দাখিল করলেও ‘সেলিম ওসমানকে ছাড় দিয়ে দায়সারা’ ওই প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে ১০ আগস্ট বিচার বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে শ্যামল কান্তিকে কানধরে উঠবসের ঘটনায় সেলিম ওসমান জড়িত কি না-তা খতিয়ে দেখতে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিমকে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়।

নির্দেশনা অনুযায়ী গত ১৯ জানুয়ারী হাইকোর্টে প্রতিবেদন দাখিল করেন ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম শেখ হাফিজুর রহমান।
শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে স্থানীয় এমপি সেলিম ওসমানের নির্দেশেই লাঞ্ছনা করা হয় বলে ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। এ ছাড়া শ্যামল কান্তির বিরুদ্ধে ইসলাম ধর্ম অবমাননার অভিযোগেরও সত্যতা মেলেনি বলেও উল্লেখ করা হয় প্রতিবেদনে।

এরই মধ্যে গত ১ ফেব্রুয়ারী শ্যামল কান্তি ভক্তকে দেওয়া পুলিশি নিরাপত্তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। এরপর ২৯ মার্চ ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জেসমিন আরা বেগম এমপি সেলিম ওসমান এবং অপু নামে আরেক জনকে ১৪ মে আদালতে আত্মসমর্পণ করার নির্দেশ দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here