নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি, সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিনিধি: সিদ্ধিরগঞ্জের কাঁচপুর ব্রীজ সংলগ্ন শীতলক্ষ্যা নদীর পশ্চিম তীরে ভাসমান ৩টি ড্রেজার, ৩০০ ফুট ড্রেজারের পাইপ, ১০টি বাঁশের তৈরী জেটি ও ১০টি বালু পাথরের গদি গুড়িয়ে দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দর। এছাড়া ২ লাখ ৫৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায় ও জব্দকৃত বালু ও পাথর নিলামে ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়। এসময় এক যুবককে ৩ দিনের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ দেন ভ্রাম্যমান আদালত।
রবিবার (১১ ফেব্রুয়ারী) সকাল থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত বিআইডব্লিউটিএ’র নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শামীম বানু শান্তির নেতৃত্বে এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, বিআইডব্লিউটিএ’র নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম পরিচালক মোঃ গুলজার আলী, উপ-পরিচালক মোঃ শহিদুল্লাহ, সহকারী পরিচালক পারভেজ আহাম্মেদ, শাহআলম, রেজাউল করিম লিটন প্রমুখ। উচ্ছেদ অভিযানে বিআইডব্লিউটিএ’র জাহাজ অগ্রনী, একটি এক্সাভেটর (ভেকু), একটি টাগবোট, সহ বিপুল সংখ্যক উচ্ছেদ কর্মী, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কাঁচপুর ব্রীজ সংলগ্ন এলাকায় শীতলক্ষ্যার পশ্চিম তীরে ভাসমান অবস্থায় ড্রেজার দিয়ে বালুর ব্যবসা চালিয়ে আসছিল নূর হোসেনের ছোট ভাই নুরুজ্জামান জজ ও স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা চুন ব্যবসায়ী আনোয়ার ইসলামসহ স্থানীয় যুবলীগের কিছু কর্মী। রোববার দুপুরে পরিচালিত অভিযানে তাদের মালিকানাধীন ৩টি ভাসমান ড্রেজার ও ৩০০ ফুট ড্রেজারের পাইপ ভেঙ্গে গুড়িয়ে দেয়া হয়।

এছাড়া সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে কাঁচপুর ব্রীজের উত্তর দিকে অবৈধভাবে নির্মিত অন্তত ১০টি বাশের জেটি উচ্ছেদ করা হয়।

ওয়াকওয়ে নির্মিত হওয়ার পরেও শীতলক্ষ্যার তীরে অবৈধভাবে বালু ও পাথরের ব্যবসা চলছিল। অভিযানে ১০টি বালু পাথরের গদি উচ্ছেদ করা হয়।

এছাড়া বিকেলে কাঁচপুর ল্যান্ডিং স্টেশনে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র অনুমতি ছাড়াই কাঁচপুর সেতু নির্মাণের দায়িত্বে নিয়োজিত মীর আক্তার কনষ্ট্রাকশনের ফার্মের নামে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের সময় আসীফ নামের এক যুবককে আটকের পরে ২ লাখ টাকা দন্ড দেয়া হয়।

আল ফালু বাল্কহেডকে ২০ হাজার টাকা, অনামিকা সামিরা নামের বাল্কহেডকে ১৫ হাজার টাকা জরিমানা, হাজী রমিজউদ্দিন বাল্কহেডকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া উচ্ছেদ কাজে বাধা দেয়ায় অবৈধ দখলদার সিদ্ধিরগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নজরুল ইসলামের ভাই জহিরের কর্মী আল-আমিনকে নগদ ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও ৩ দিনের কারাদন্ড দেন ভ্রাম্যমান আদালত।

অভিযানকালে জাহাঙ্গীরের গদির জব্দকৃত মালামাল নিলামে ১৫ হাজার টাকায় কিনে নেন সিদ্ধিরগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম ওরফে ছোট নজরুল।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শামীম বানু শান্তি জানান, হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী রোববার ৩টি অবৈধ ড্রেজার, ৩০০ ফুট ড্রেজারের পাইপ, বেশ কিছু বাশের তৈরী জেটি ও বালু পাথরের গদি উচ্ছেদ করা হয়েছে। আমাদের উচ্ছেদ অভিযান চলমান থাকবে।

বিআইডব্লিউটিএ নারায়ণগঞ্জ নদী বন্দরের যুগ্ম পরিচালক গুলজার আলী জানান, দখলদারদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলবে। দখলদাররা যতই প্রভাবশালী হোক না কেন তাদেরকে কোন ধরনের ছাড় দেয়া হবেনা। সোমবারও আমাদের অভিযান পরিচালিত হবে।

এছাড়া শীঘ্রই শীতলক্ষ্যা, ধলেশ্বরী ও মেঘনা নদীর যেসকল স্থানে নদী অবৈধ দখল হয়েছে সেগুলোতে অভিযান পরিচালিত হবে। ভাসমান ড্রেজার দিয়ে বালু ব্যবসায়ী স্থানীয় আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ার ইসলাম জানায়, আমরা স্থায়ীভাবে কোন প্রকার দখল করে শীতলক্ষ্যার কোন ক্ষতি করিনি। আমাদেরকে কোন প্রকার নোটিশ দেয়নি বিআইডব্লিউটিএ। আমাদেরকে জানালে বা নোটিশ দিলে আমরা ড্রেজারগুলো সরিয়ে ফেলতাম। উচ্ছেদের ফলে একেকটি ড্রেজারের ৫ থেকে ৬ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ ড্রেজারগুলোকে কেন্দ্র করে অনেক গরীব পরিবার তাদের জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here