নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন হায়দার বলেছেন, ‘শুধু আইন প্রয়োগ করেই মাদক নির্মূল করা সম্ভব হবে না। জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনসহ সকল পেশাজীবী মিলেও পারবো না মাদকের বিস্তার ঠেকাতে। তার জন্য প্রয়োজন জনসচেতনতা তৈরী। আর পরিবার থেকেই সচেতনতা শুরু করতে হবে। তারপর সমাজের প্রতিটি ক্ষেত্রে যে যার অবস্থান থেকে মাদকের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থান তৈরী করতে পারলেই দেশ থেকে মাদকের ভয়াবহতা হ্রাস পাবে।’

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসন ও জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর আয়োজনে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও পাচারবিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে র‌্যালী পরবর্তী আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধাণ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বুধবার (২৬ জুলাই) সকালে জেলা সার্কিট হাউসে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।


বিশেষ অতিথির বক্তব্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মো: মতিয়ার রহমান বলেন, ‘মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের পুলিশ বাহিনী যথেষ্ট কাজ করছে। নারায়ণগঞ্জের মাদক বিক্রেতা ও সেবীদের নামের তালিকা তৈরী করা হয়েছে। সেই তালিকা অনুযায়ী আমাদের নিয়মিত এবং বিশেষ অভিযান অব্যহত রয়েছে।’

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা: ইকবাল বাহার চৌধুরী বলেন, ‘মাদক থেকে দূরে থাকতে হলে পরিবারের ভূমিকা অপরিহার্য। আমাদের সকলকে স্বাস্থ্য সচেতন হতে হবে। মাদক মানুষের জীবনকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। তাই সমাজ থেকে মাদকের বিস্তার রোধ করতে হবে।’

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মো: আবদুল হামিদ মিয়ার সভাপতিত্বে এবং বাংলাদেশ এনজিও’স নেটওয়ার্ক এর চেয়ারম্যান এস এম আরিফ মিহিরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক বিপ্লব কুমার মোদক,বিভিন্ন এনজিও এবং মাদক নিরাময় সংস্থার কর্মকর্তা ও মাদকের করাল গ্রাস থেকে ফিরে আসা যুবক মাসুম। এরপর মাদক নির্মূলে অবদাণ রাখায় বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তিকে পুরস্কার দেওয়া হয়।

আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিরনী অনুষ্ঠানের পূর্বে একটি র‌্যালী জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে বের হয়ে আদালতপাড়া প্রদক্ষিণ করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here