নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জের সড়কগুলোতে চলতে গেলে মনে হয়না কোথাও লকডাউন নামক একটা শব্দ রয়েছে। রাস্তা জুড়েই সারি সারি গাড়ি, কোনটা যাচ্ছেতো অন্যটা আসছে। কিছুক্ষণ পর পরই ট্রাফিক জ্যাম লেগে যাচ্ছে শহরের ব্যস্ততম বঙ্গবন্ধু সড়কে। তবে সেখানে সব ধরনের যানবাহন থাকলেও নেই গন পরিবহন নামে পরিচিত বাস মিনিবাস। এটা ছাড়া বাকী সবই চলছে নারায়ণগঞ্জের রাস্তায়।

জানা যায়, করোনার রেড জোন নারায়ণগঞ্জে একেবারেই ভেঙ্গে পরেছে লকডাউন, শহরের কোথাও মানুষের মাঝে দেখা যাচ্ছে না করোনাভীতি। সর্বত্রই যেনো স্বাভাবিক পরিস্থিতি। স্বাস্থ্য বিধি মেনে ঘরে থাকার কোন বালাই নেই নারায়ণগঞ্জবাসীর মাঝে। ২৬ মার্চ থেকে শুরু হওয়া সাধারণ ছুটি আর ৮ এপ্রিল থেকে নারায়ণগঞ্জকে লকডাউন করা হলেও তা বেশীদিন স্থায়ী হয়নি। আর বর্তমানেতো লকডাউনের কোন অস্তিত্বই নেই নারায়ণগঞ্জে।

করোনা ভাইরাসের প্রকোপ শুরু পর থেকে ঘরে থাকার বিষয়ে প্রথমে বেশ কড়াকড়ি ছিলো নারায়ণগঞ্জে। কিন্তু ২৬ এপ্রিল গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী খুলে দেওয়ার পর থেকে শিথিল হতে থাকে সবকিছু। এরপর হোটেল রেস্তোরা খুলে দিলে আরেকটু ধাক্কা খায় লকডাউন পরিস্থিতি আর গত রবিবার ১০ মে থেকে দোকানপাট ও মার্কেট খুলে দেয়ার পর থেকে পুরোপুরিভাবে ভেঙ্গে পরেছে নারায়ণগঞ্জে করোনা মোকাবেলার সকল প্রস্তুতি। এখন নারায়ণগঞ্জে লকডাউন আছে কেবল সরকারী ঘোষনায় সীমাবদ্ধ।

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাসের সংক্রমন প্রতিরোধে গত ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ হওয়া দেশের সকল মার্কেট ও বিপনিবিতান খুলেছে রবিবার ১০ মে। দীর্ঘ ৪৫ দিন বন্ধ থাকার পরে পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে খুলে দেয়া হয়েছে এসব মার্কেট ও দোকানপাট। যদিও দেশের অনেক জেলায় দোকান মালিক সমিতি বন্ধ রেখেছে তাদের মার্কেট, এমনকি রাজধানী শহর ঢাকার বড় বড় মার্কেটও বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে কিন্তু নারায়ণগঞ্জের ব্যবসায়ীরা করোনা সংক্রমণের সম্ভাবনাকে উড়িয়ে দিয়ে রবিবার খুলে দিয়েছে তাদের সকল দোকানপাট ও শপিংমল। আর মার্কেট খোলার পর থেকেই ক্রেতাদের উপস্থিতিও লক্ষ্য করা গেছে মার্কেটগুলোতে।

নারায়ণগঞ্জ শহরের বেশীরভাগ মার্কেট খোলায় আবারো ব্যস্ত হয়ে পরেছে গুরুত্বপূর্ণ বঙ্গবন্ধু সড়ক। দিনভর সেখানে দেখা গেছে যানজট। যদিও গন পরিবহন বন্ধ রয়েছে তবে রিক্সা, ইজিবাইক, সিএনজি আর ব্যক্তিগত গাড়ির পাশাপাশি পণ্যবাহি যানের চাপে আবারো জট লেগে যাচ্ছে শহরের প্রধাণ এই সড়কে। শহরের ব্যস্ততম বিবি রোডে থেমে থেমেই চলেছে যানজট। বিশেষ করে চাষাঢ়া, ব্যাংকের মোড়, ২নং রেল গেইটসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে অতিরিক্ত যানবাহন দেখা গেছে। দীর্ঘদিন ফাঁকা থাকলেও দোকানপাট ও মার্কেট খুলে দেয়ায় আবারো যানবাহন বৃদ্ধি পাওয়ায় আগের মতোই যানজটের নগরীতে পরিনত হচ্ছে নারায়ণগঞ্জ। খাতা কলমে লকডাউন চললেও বাস্তবে তার কোন লক্ষনই নজরে পরছেনা করোনার রেড জোন নারায়ণগঞ্জে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here