নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, শোষন মুক্ত সমাজ ছাড়া স্বাধীনতা শুধুই অর্থহীন। সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষগুলো নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। মায়ানমারের আরাকান রাজ্যের নিরিহ মানুষগুলো নিপীড়নের শিকার হয়ে আজ বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছে।
শুক্রবার (২৪ নভেম্বর) বিকাল ৪টায় নগরীর আলী আহম্মদ পৌর পাঠাগারের সামনে অক্টোবর বিপ্লব শতবর্ষ উদযাপন পরিষদ নারায়ণগঞ্জ এর উদ্যোগে রুশ বিপ্লবের ১০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, লাল পতাকা মিছিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ২০১২ সালের ২৪ নভেম্বর আজকের এই দিনে আশুলিয়ার তাজরিন ফ্যাশন গার্মেন্টসে অগ্নিকান্ডে ১১৪ জন শ্রমিক নিহত হয়েছিল। আহত হয়েছিলেন আরও প্রায় ২ শতাধিক শ্রমিক। তারা অনেকেই পঙ্গুত্ব অবস্থায় জীবন যাপন করছেন। আমি শ্রদ্ধা ভরে তাদেরকে স্মরন করছি। আমাদের দেশের শ্রমজীবি মানুষগুলো মাথার ঘাম পায়ে ফেলে কাজ করে অর্থ উপার্জন করেন শুধুমাত্র তাদের পরিবার-পরিজনদের মুখে দু’মুঠো খাবার তুলে দিতে। তারপরও অনেক শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য অধিকার না পেয়ে নানা ভোগান্তির শিকার হয়ে ঘুরছেন পথে পথে। সারা দেশে শোষিত ও নিপীড়িত মানুষগুলোকে তাদের ন্যায্য অধিকার ফিরিয়ে দেওয়ার আহবান আমাদের। আমরা চাই শোষনমুক্ত সমাজ ব্যবস্থা।

অনুষ্ঠানে এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি এড. জিয়াউল ইসলাম কাজল, কমিউনিষ্ট পার্টির জেলার সমন্বয়ক কমরেড বিমল কান্তি দাস, কমরেড হাফিজুল ইসলাম, গণসংহতির জেলার সমন্বয়ক কমরেড তরিকুল সুজন, আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির সাধারন সম্পাদক এড. আওলাদ হোসেন, নাগরিক কমিটির সভাপতি এড. এবি সিদ্দিক, সাধারন সম্পাদক আব্দুর রহমান, নারায়ণগঞ্জ সাংস্কৃতিক জোটের উপদেষ্টা রফিউর রাব্বি, নাসিক ১৫ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর অসিত বরন বিশ^াস প্রমূখ।

পরে নেতৃবৃন্দ লাল পতাকা হাতে একটি মিছিল নিয়ে নগরীর কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিন করেন নেতৃবৃন্দরা।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here