নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: খরিদকৃত জমিতে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ ও দখলদারদের হুমকি ও ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবির অভিযোগ পাওয়া গেছে সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় সন্ত্রাসী, চিহ্নিত চাঁদাবাজ, মাদক সেবনকারী, মাদক ব্যবসায়ী, অস্ত্রাধারী ও ভূমিদস্যুদের বিরুদ্ধে।
বুধবার (১০ মে) সকাল ১১টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাব মিলানায়তনের সভাকক্ষে ব্রাক্ষ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ থানার স্টেশন রোড এলাকার বাসিন্দা ডা: আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ সংবাদ সম্মেলনে এই সকল অভিযোগ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সিদ্ধিরগঞ্জ মৌজার ১২.৮৫ শতাংশ একটি জমি তার ছেলে সাকিব বিন মাহমুদ এর নামে সাবলা কবলা দলিল মূলে নারায়ণগঞ্জ সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে গত ২৮/০১/১৯৯৫ সানে ক্রয় করার পর থেকেই ঘটনার সূত্রপাত শুরু হয়।

তার ছেলে সাকিব বিন মাহমুদ এর রেকর্ডভূক্ত ও নামজারীকৃত দখলীয় জমিটিতে বিগত ০৭/০৫/২০১৬ইং তারিখে কাজ করতে গেলে স্থানীয় এলাকার মাদক সেবী, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যু সিদ্ধিরগঞ্জ এর শিমরাইল এলাকার মোহাম্মদ আলী, ইরান, ওমর উভয় সাং- আজিবপুর ও  অন্যান্য সন্ত্রাসীরা নেশাগ্রস্থ অবস্থায় তার ছেলের জায়গায় অস্ত্র-সস্ত্র সহ তাৎক্ষনিক চাঁদা দাবি করে। এর আগে বিগত ২০/০৪/২০১০ইং উক্ত সন্ত্রাসীগন তাদের নিকট ১০ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেন।

এ ঘটনায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ২২/০৪/২০১০ ইং তারিখে উল্লেখিতদের বিরুদ্ধে নিরাপত্তার স্বার্থে একটি সাধারন ডায়রী দায়ের করা হয়। যার নং-১৩২১। এরপর ১৬/০৪/২০১৭ইং  র‌্যাব-১১ নারায়ণগঞ্জ বরাবরে অপর একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়। সন্ত্রাসীরা নানা ধরনের হুমকির কারনে পরবর্তীতে ২৪/০৭/২০১৬ ইং তারিখে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় আরেকটি সাধারন ডায়রী করা হয়। যার নং-১১০৩।

সর্বশেষ ২৭/০৪/২০১৭ইং উক্ত সন্ত্রাসীরা তাহাদের নিকট পূণরায় চাঁদা দাবি করেন এবং অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে তাদের নির্মাণ কাজে বাধা সৃষ্টি করে ভাংচুর চালিয়ে কাজ বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে উক্ত সন্ত্রাসীরা অধিকতর নৈরাজ্য সৃষ্টির লক্ষে তাদের জমিতে পাহাড়ারত পাহাড়াদারকে মিথ্যা র‌্যাব পরিচয় দিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। এবং যাওয়ার সময় বলে যায় এই জমি পাহাড়া দিলে তোর পা কেঁটে শীতলক্ষ্যা নদীতে ফেলে মেরে ফেলবো। এ ঘটনার পর অপর একটি সাধারন ডায়রী সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় গত ০৬/০৫/২০১৭ইং তারিখে দায়ের করা হয়। যার নং- ২৬৭। এমতাবস্থায় তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছেন বলে জানান। এ ঘটনায় তারা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন, ব্রাক্ষ্মনবাড়িয়া জেলার এড. কাজী গোলাম মোঃ ফারুক, ঠিকাদার মনির হোসেন, স্থানীয় এলাকার বাসিন্দা মোঃ আঃ রহিম, ম্যানেজার মোজাদ্দিদ ভূইয়া সহ প্রমূখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here