নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নগরীর বিভিন্ন স্থানে সংবাদকর্মী অথবা মানবাধিকার কর্মী পরিচয়ে এক শ্রেণীর প্রতারক চক্র সাধারণ মানুষ সাথে প্রতারণা করে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। প্রতারকদের কারণে অনেক সময় প্রকৃত সংবাদকর্মী অথবা মানবাধিকার কর্মীরাও বিপাকে পড়েন।
শনিবার (৪ নভেম্বর) সকালে এমন এক প্রতারণ চক্রের সন্ধায় পায় এই প্রতিবেদক। সাধারণ মানুষ সেজে দিন ব্যাপী ঐ প্রতারণ চক্রের সম্পর্কে জানতে অনুসন্ধান চালায়।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, শনিবার সকালে কাশীপুরের বাংলাবাজার এলাকার জ্ঞন গৃহ কোচিং সেন্টার নামে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যায় প্রতারণ চক্রের তিন সদস্য। এরা হলেন, নগরীর গুলশান হল ভবনের বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল এর নারায়ণগঞ্জ মহানগর কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্যসহ চারটি আন্ডারগ্রাউন্ড পত্রিকার সংবাদ কর্মী পরিচয় দানকারী জি.কে. রাসেল, দিন প্রতিদিন নামে পত্রিকার সংবাদ কর্মী পরিচয় দানকারী হাইউল ইসলাম প্রধান (হাবিব) ও যশোর জেলার কপোতাক্ষ নামে একটি পত্রিকার সংবাদ কর্মী পরিচয় দানকারী নজরুল ইসলাম।

এই প্রতারক চক্রের তিনজন প্রথমে কোচিং সেন্টারের শিক্ষক জালাল উদ্দিনকে বলেন, আমরা শিক্ষা তথ্য বিভাগ থেকে এসেছি। আপনার কোচিং অবৈধ, এই বলে মোবাইলে ভিডিও করতে শুরু করেন। ভিডিও শেষে কোচিং এর কাগজ পত্র চায় প্রতারকরা। উত্তরে শিক্ষক জালাল উদ্দিন বলেন, আমি ছোট পরিসরে ২০জন শিক্ষার্থীকে পড়াই। ভাই আমার কাছে কোন কাগজ নেই। এসময় প্রতারকরা আচ্ছা সমস্যা নেই, আপনি আমাদের স্যার(নজরুল) কে খরচ দিয়ে দেন তাহলে কোন সমস্যা হবে না। দুপুর তিনটার মধ্যে টাকা পাঠিয়ে দিবেন নইলে কাল আপনার খবর আছে।

দুপুর ২টায় পরিচয় গোপন রেখে এই প্রতিবেদক শিক্ষক জালাল উদ্দিনের সহকারী শিক্ষক পরিচয়ে প্রতারক চক্রের তিনজনের সাথে দেখা করেন। এই সময় আরো দুইজন মানে মোট পাঁচ প্রতারকের সাথে কথা বলে নগরীর কালীর বাজার এলাকায়। এসময় প্রতারকরা বিভিন্ন ভয় দেখিয়ে টাকা আদায় করার চেষ্টা চালায়। প্রায় দেড় ঘন্টা আলাপ চারিতার পর কৌশলে শিক্ষক জালাল উদ্দিনকে উপস্থিত রেখে এই প্রতিবেদক ও আরো কয়েকজন স্থানীয় সংবাদ কর্মী একত্রিত হয়ে প্রতারক চক্রের সদস্যদের হাতে নাতে ধরা হয়। প্রতারকদের ধরার পর এদের কাছ থেকে জানাযায় তাদের একজন বসও রয়েছেন। বস থাকেন ২৩ কেসি নাগ রোড আমলাপাড়া। সেখানে গিয়ে দেখা যায় বসও সংবাদ কর্মী। বস ইউসুফ আল আজিজ বিজনেস ফাইল নামে একটি পত্রিকার নারায়ণগঞ্জের ব্যুরো চীফ।

এসময় স্থানীয় সংবাদকর্মীরা প্রতারকদের পুলিশে দিতে চাইলে পরবর্তীতে সাবধান করে ছেড়ে দেয়। এঘটনার পর শিক্ষক জালাল উদ্দিন উপস্থিত সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আপনাদের মত প্রকৃত সাংবাদিকরাই পারেন সমাজকে পরিবর্তন করতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here