নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জে আলোচিত সাত খুনের মামলার ডেথ রেফারেন্স ও আপিলের রায়ে প্রধান আসামী নূর হোসেন, তারেক সাঈদসহ ১৫ আসামীর মৃত্যুদন্ড বহাল থাকায় ‘ন্যায় বিচার’ পাওয়ার দাবী করেছেন নিহতদের স্বজনরা। তারা অবিলম্বে এই রায় কার্যকর করতে সরকারের প্রতি আবেদন জানিয়েছেন।
মঙ্গলবার (২২ আগস্ট) বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রায় ঘোষণা করেন।

এরপর এজলাস থেকে বেরিয়ে মামলার বাদী ও নিহত প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘ন্যায় বিচার পেয়েছি। রায় দ্রুত কার্যকর হউক, সরকারের কাছে তাই দাবি করছি। তবে নূর হোসেনের সহযোগীদের ফাঁিস না হওয়ার পরিবারে নিয়ে আতংঙ্ক ও শংঙ্কিত রয়েছি।’

সাত খুনের নিহত গাড়ি চালক জাঙ্গীরের স্ত্রী নুপুর আক্তার বলেন, ‘জন্মের আগেই বাবাকে হারিয়েছে আমার মেয়ে রোজা। এখন বাবার খুনিদের ফাঁিস দেখতে পারবে। এ রায়ে আমি খুশি, তবে সবার ফাঁিস হলে আমার স্বামী জাহাঙ্গীরের আত্মা শান্তি পেতো। রায় দ্রুত কার্যকর করার জন্য সরকারের প্রতি আহবান করছি।’

সাত খুনের নিহত মনিরুজ্জামান স্বপন এর ভাই মিজানুর রহমান রিপন বলেন, ‘আমরা শংঙ্কিত, আতংঙ্কিত, এ মামলার নুর হোসেনর সহযোগীদের ফাঁিস না হওয়ার তারা জেলে বসে পূনরায় এমন নৃশংস ঘটনা আবারো ঘটাতে পারে। তারা জেলে বসে নুর হোসেনের ফাঁিসর প্রতিশোধ নিতে পারে। তবে রায় দ্রুত কার্যকর করলে আমার ভাইসহ সকল নিহতের আত্মার শান্তি পাবে।’

এ বিষয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ গোদনাইল এলাকার ব্যবসায়ী নুরুজ্জামান বলেন, ‘আলোচিত এ রায়ে এটাই প্রমানিত হয়েছে, আইনে উর্ধ্বে কেউ নয়। দেশে আইনের শাসনের প্রতি দেশের মানুষের আস্থা অর্জন হয়েছে। এখন রায় দ্রুত কার্যকর হলে নিহতের আত্মার শান্তি পাবে।’

নিহত সাত খুনের মামলা থেকে অব্যাহতি পাওয়ার আমিনুল হক রাজু বলেন, ‘পুলিশের তদন্তের ও আল্লাহ রহমতে আদালতের মাধ্যমে এ মামলা থেকে অব্যাহতি পাই। এখন এ আলোচিত মামলা রায়ে সিদ্ধিরগঞ্জবাসীর মত আমিও খুশি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here