নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: বিএনপি’র চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়ার কক্সবাজার যাত্রা উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র শো ডাউনে সুপার ফ্লপ করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি, সেই তুলনায় কোন পদে না থেকেও এড. তৈমূর আলম খন্দকার, মো: গিয়াসউদ্দিন ও মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন-এমনটাই মনে করে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র তৃণমূল।

তৃণমূলের মতে, নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সভাপতি কাজী মনিরুজ্জামান ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ কমিটি গঠন হওয়ার পর প্রায় সাত মাসেও নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে উজ্জিবীত করতে পারেননি। বরং জাতীয় বা দলীয় কর্মসূচি পালনে বারবার বিতর্কের জন্ম দিয়েছেন। দায়িত্ব পাওয়ার পর সর্বপ্রথম জেলা বিএনপি’র বড় আয়োজন কর্মীসভায়ও চরম বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। জেলা বিএনপি’র সহ সভাপতি এড. আবুল কালাম আজাদ বিশ^াস সে অনুষ্ঠানে নেতাকর্মীদের দ্বারা লাঞ্ছিত হন।

এরপর থেকে যে কোন কর্মসূচিতে আর নেতাকর্মীদের নিয়ে মনে রাখার মতো কোন আয়োজন করতে পারেননি কাজী মনির ও মামুন মাহমুদ। এমনকি চেয়ারপার্সনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানার প্রতিবাদে ডাকা বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পুলিশের ধাওয়ায় নেতাকর্মীদের বিপদের মুখে ফেলে পালিয়ে যান সভাপতি ও সম্পাদক। সর্বশেষ দলীয় চেয়ারপার্সণের কক্সবাজার যাত্রা উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জ অতিক্রমের সময় নেতাকর্মী নিয়ে শোডাউন করার ক্ষেত্রেও সুপার ফ্লপ এ দুই রতœ। এদিন নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুরে অল্প কিছু নেতাকর্মী নিয়ে জেলা বিএনপি’র সভাপতি কাজী মনির, সিদ্ধিরগঞ্জের চিটাগাং রোডে মামুন মাহমুদের অবস্থান খুবই অসহায় ঠেকেছে নেতাকর্মীদেও কাছে। তাছাড়া জেলা বিএনপি’র আরেক হেভিওয়েট নেতা সহ সভাপতি মো: শাহ আলম ঘন্টার পর ঘন্টা সাইনবোর্ডে নেতাকর্মীদের দাড় করিয়ে রেখে মাত্র কয়েক মিনিটের ফটোসেশন কওে বিদায় নেন।

অপরদিকে নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র কোন পদে না থেকেও জেলা বিএনপি’র সাবেক সভাপতি এড. তৈমূর আলম খন্দকার চেয়ারপার্সণকে স্বাগত জানাতে শনিবার সকাল থেকেই কয়েক হাজার নেতাকর্মী নিয়ে কাঁচপুর ব্রিজে অবস্থান নেন আর চেয়ারপার্সণ না যাওয়া পর্যন্ত নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে অবস্থান ধরে রাখেন। যা তৃণমূল নেতাকর্মীদেরকে অনেকটাই উজ্জিবীত করেছে বলে মনে করেন তারা।

নারায়ণগঞ্জ বিএনপি’র আরেক পদহীন নেতা সাবেক এমপি মো: গিয়াসউদ্দিন চেয়ারপার্সণকে স্বাগত জানাতে নারায়ণগঞ্জের চিটাগাং রোড পুরোটাই দখল করে রাখেন নেতাকর্মীদের সাথে। প্রচন্ড রোদকে উপেক্ষা করে কয়েক ঘন্টা রাস্তায় দাড়িয়ে থেকে দলীয় চেয়ারপার্সণকে অভ্যর্থনা জানান। নেতাকর্মীদের সাথে রাস্তায় দাড়িয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা চেয়ারপার্সনের জন্য অপেক্ষা করায় তৃণমূলের জন্য অনেকটাই অনুপ্রেরনার উৎস হয়েছেন মো: গিয়াসউদ্দিন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপি’র কোন পদে না থেকেও রূপগঞ্জের কয়েক হাজার নেতাকর্মীকে নিয়ে সকাল থেকেই কাঁচপুর থেকে মদনপুর পর্যন্ত সড়কে অবস্থান নেন কেন্দ্রীয় বিএনপি’র কার্যকরী সদস্য মোস্তাফিজুর রহমান ভূইয়া দিপু। সকাল থেকেই নেতাকর্মীদেও সাথে রাস্তায় দাড়িয়ে অপেক্ষা করতে থাকেন নেত্রীকে স্বাগত জানাতে। দুপুরে দলীয় চেয়ারপার্সণ বেগম খালেদা জিয়া কাঁচপুর অতিক্রম করার সময় দিপু ভূইয়ার সমর্থকরা লাল সবুজ পতাকা নিয়ে নেত্রীর গাড়ির সামনে অবস্থান নিয়ে নেত্রীকে এগিয়ে দেন। এ সময় হাজার হাজার নেতাকর্মী নিয়ে নেত্রীকে অব্যর্থনা জানান দিপু আর লজ্জায় ফেলেন জেলার ডাকসাইটে নেতাদের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here