নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এড. আবদুল বাসেত মজুমদার বলেছেন, প্রধাণমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদেরকে বলেছেন সুপ্রিম কোর্টের নির্বাচনে আমাদের যে বিপর্যয় হয়েছে, বার কাউন্সিল নির্বাচনে যেনো সেরকমটা না হয়। নেত্রীর ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটানোর জন্য আমাদেরকে সম্মিলিতভাবে সাদা প্যাণেলের পক্ষে কাজ করতে হবে। সকল বিভেদ ভুলে গিয়ে তাই আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
আসন্ন বার কাউন্সিল নির্বাচন উপলক্ষে নারায়ণগঞ্জে প্যাণেল পরিচিতি অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সোমবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে নারায়ণগঞ্জ আইনজীবী সমিতি ভবনের নীচ তলায় এই পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের অপর উপদেষ্টা এড. ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন বলেন, আওয়ামীলীগের আইনজীবীদের মধ্যেকার বিরোধ মিমাংসায় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এ লক্ষ্যে একটি কমিটিও করা হয়েছে। সকল বিভেদ নিরসন করে আওয়ামী পরিবারকে ঐক্যবদ্ধ করা হবে।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক সম রেজাউল করিম বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের আইনজীবীদের মধ্যে বিভেদ বিভক্তি থাকতে পারে না তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে মান অভিমান থাকতে পারে। এই ত্রুটি নিরসন করে সকলকে এক প্লাটফরমে নিয়ে আসতে হবে।

বার কাউন্সিলর নির্বাচনের গ্রুপ আসনের প্রার্থী এড. নজিবুল্লাহ হিরু বলেন, প্রাচ্যের ডান্ডি নারায়ণগঞ্জ হলো ঐতিহ্যের নারায়ণগঞ্জ, মুক্তিযুদ্ধ আর বঙ্গবন্ধুর ভালোবাসার নারায়ণগঞ্জ। নারায়ণগঞ্জের আইনজীবীরা এর আগেও আমাদেরকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করেছিলেন। এবারেও আমরা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ধারক সাদা প্যাণেল নিয়ে আপনাদের কাছে এসেছি। আপনাদের জন্য আমরা বেনাভোলেন্ট ফান্ডে প্রধাণমন্ত্রীর কাছ থেকে ৪০ কোটি টাকা এনে দিয়েছি। ১৫ তলা বার ভবনের সমস্ত কার্যক্রম শেষ করেছি। আশা করছি আগামী ১৪ মে বার কাউন্সিল নির্বাচনের আগেই এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করতে পারবো। তাই আপনাদের সেবা করার জন্য আমাদের পূর্ণ প্যাণেলকে বিজয়ী করতে হবে।

প্যাণেল পরিচিতি অনুষ্ঠানের সভাপতি নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এড. হাসান ফেরদৌস জুয়েল উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে নারায়ণগঞ্জের দুই কোর্ট একত্রে রাখায় সর্বাত্মক সহযোগিতা অব্যাহত রাখার আহবান জানিয়ে বলেন, আমাদের নারায়ণগঞ্জ বারের প্রায় সাড়ে বারোশ’ আইনজীবীর সংসার এই একটি বার ভবনে। আমাদের একটি আধুনিক ডিজিটাল বার ভবন খুব প্রয়োজন। আর আমাদের ম্যাজিষ্ট্রেট কোর্ট করা হয়েছে এখান থেকে প্রায় ২ কিলোমিটার দুরে। তাই আমরা নারায়ণগঞ্জের অইনজীবীরা দুই কোর্ট একত্রে রাখার দাবী জানিয়ে আসছি দীর্ঘদিন যাবত। আমাদের মাননীয় আইনমন্ত্রী এই বার ভবনে বসেই দুই কোর্ট একত্রে রাখার ঘোষনা দিয়েছিলেন। নারায়ণগঞ্জের সকল আইনজীবীদের পক্ষে আপনাদের কাছে সহযোগিতা কামনা করছি এ সমস্যাটি সমাধানে। আর আইনমন্ত্রীর উপস্থিতিতে সে সভায় উপস্থিত নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান বলেছিলেন, মাননীয় আইনমন্ত্রী অনুমতি দিলে আমি নারায়ণগঞ্জের আইনজীবীদের জন্য আমার নিজ খরচে একটি আধুনিক বার ভবন নির্মাণ করে দেবো। তখন আইনমন্ত্রী বলেছিলেন, আমি অনুমতি না অনুরোধ করলাম আপনি এটা করে দেন। আমরা আশা করছি মাননীয় সাংসদের অর্থয়নে আধুনিক বার ভবন নির্মাণের কাজ আগামী এক মাসের মধ্যেই শুরু করতে পারবো।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড. মোহসীন মিয়ার পরিচালনায় অনুষ্ঠিত প্যাণেল পরিচিতি অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বার কাউন্সিল নির্বাচনের সাধারণ আসনের প্রার্থী এড. জেডআই খান পান্না, এড. পরিমল চন্দ্র গুহ, নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড. আনিসুর রহমান দিপু, নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল হাই, সাধারণ সম্পাদক এড. আবু হাসনাত শহীদ মোহাম্মদ বাদল, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এড. খোকন সাহা, পাবলিক প্রসিকিউটর এড. ওয়াজেদ আলী খোকনসহ আওয়ামী পন্থী আইনজীবীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here