নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: ছোট বোন সিটি মেয়র আইভীর দাবীর প্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ সেলিম ওসমান দিনের বেলায় নিতাইগঞ্জে লোড-আনলোড বন্ধ সহ ট্রাক স্ট্যান্ড সরানোর নির্দেশনা দিলেও তার এই নির্দেশনা মানেনি ব্যবসায়ীসহ ট্রাক মালিক চালকরা।
সোমবার (২৪ জুলাই) নগরীর মন্ডলপাড়া থেকে নিতাইগঞ্জ পর্যন্ত ঘুরে দেখাগেছে নিত্যদিনের মত এদিনও উক্ত সড়কের অধিকাংশ জায়গা জুড়েই ছিল ট্রাক কভার্ড ভ্যানের দখলে। হয়েছে মালামাল লোড-আনলোড।

কিন্তু সেলিম ওসমানের নির্দেশনার পরেও কোন কর্ণপাত করেন নি ব্যবসায়ীরা।

এব্যাপারে জানতে নিতাইগঞ্জের ব্যবসায়ী নেতা আলহাজ¦ মতিউর রহমানসহ নারায়ণগঞ্জ জেলা ট্রাক কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মাসুদুর রহমান মানিকের সাথে কয়েকবার যোগাযোগ করা হলেও তারা মুঠোফোন রিসিভ করেন নি।

উল্লেখ্য, রবিবার (২৩ জুলাই) সকালে নগর ভবন প্রাঙ্গণে (২০১৭-১৮ইং) অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার পর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীন জাইকা সহায়তাপুষ্ট “সিটি গভরনেন্স প্রকল্প” এর আওতায় নাসিক এর স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও সুশাসন নিশ্চিতকল্পে আয়োজিত ‘জনতার মুখোমুখি জনপ্রতিনিধি’ অনুষ্ঠানে মেয়র আইভীর দাবীর প্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জের নিতাইগঞ্জের ট্রাক ষ্ট্যান্ড উচ্ছেদে কঠোর হুঁশিয়ারী দিয়েছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সাংসদ একেএম সেলিম ওসমান। ছোট বোন সিটি মেয়র আইভীর দাবী পূরণে প্রয়োজনে লাঠি হাতে মাঠে নামার ঘোষণাও দেন তিনি।

সেলিম ওসমান বলেন, ‘আইভীর সাথে আমি একমত। আমিও উপলব্ধি করেছি, নিতাইগঞ্জে এই ট্রাক স্ট্যান্ডের কারনে যানজটের ফলে স্কুল কলেজগামী শিক্ষার্থীসহ সাধারন জনগণের চলাচলে চরম দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তাই আমি নিতাইগঞ্জের ব্যবসায়ীদের বলে দিতে চাই, এখন থেকে দিনের বেলায় আর নিতাইগঞ্জে কোন ট্রাক লোড-আনলোড হবে না। এতে যদি ব্যবসা বন্ধ হয়ে যায়, প্রয়োজনে ব্যবসায়ীরা অন্যত্র চলে যাবেন। কিন্তু কোন ক্রমেই আর রাস্তার উপর ট্রাক রেখে লোড আনলোড করে জনগনের চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না।’

এর আগে উক্ত অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র আইভী সাংসদ সেলিম ওসমানকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘ওয়ান ইলিভেনের সময় এই ট্রাক ষ্ট্যান্ড পঞ্চবটিতে চলে গিয়েছিলো। কিন্তু বর্তমানে আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে আমরা সেই ধারাবাহিতা ধরে রাখতে পারছি না। এই অবৈধ ষ্ট্যান্ডের কারনে নগর ভবন অবরুদ্ধ হয়ে থাকে। সাধারণ মানুষ ঠিকমতো চলাচল করতে পারে না। আমি হাইকোর্টে রিট করার পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে একদিন উচ্ছেদ অভিযান পরিচালিত হয়েছিলো। কিন্তু তার পরের দিনই আবার আগের অবস্থায় ফিরে যায়।’

আইভী প্রশ্ন রেখে আরো বলেন, ‘নিতাইগঞ্জের ব্যবসায়ীরা কেন এটা করবে, রাস্তাটা কি তাদের ব্যবসার জন্য নির্মিত?’ এখানে লতিফ মাহাজন নামের এক ব্যক্তি তার মালিকানাধীন ৩০টি ট্রাক কেন রাস্তার উপড়ে রাখবে? আপনি (সেলিম ওসমান) যদি চান তাহলে কালকের মধ্যেই এখান থেকে এই ট্রাক গুলো সরে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘গত প্রায় আট বছর যাবত আমি এই ষ্ট্যান্ড উচ্ছেদের জন্য চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছি। ডিসি অফিসে নিতাইগঞ্জের ব্যবসায়ীদের নিয়ে একটি মিটিংয়ে ডিসি আহ্বান করেছিলেন, যাতে ব্যবসায়ীরা দিনের বেলায় মালামাল লোড-আনলোড না করে রাতের বেলায় করেন। এতে তারা দাবী করেছিলো তাদের বেশি ব্যয় হবে। সেটা তারা করতে পারবে না। পরবর্তীতে ডিসি নিরুপায় হয়ে আপনার (সেলিম ওসমান) মুখের দিকে তাকিয়ে ছিল। কিন্তু আমি জানি সম্মানিত সাংসদের একটি মুখের কথায়ই এখানে ষ্ট্যান্ড থাকবে না। তাই আমি সম্মানিত সাংসদকে অনুরোধ করবো, এই অবৈধ ষ্ট্যান্ড উচ্ছেদের জন্য পদক্ষেপ গ্রহন করুন।’

এরপরেই হাতে মাইক্রোফোন নিয়ে ছোট বোন মেয়র আইভীর এই দাবীর প্রেক্ষিতে নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান নিতাইগঞ্জে দিনের বেলায় আর লোড-আনলোড না করতে ব্যবসায়ীদের নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, ‘আমার এই কথার পর যদি আবারো রাস্তার উপর ট্রাক রেখে লোড আনলোড করা হয়, তাহলে সম্মানিত মেয়রকে সাথে নিয়ে আমি লাঠি হাতে রাস্তায় নামবো। দেখবো কে বাঁধা দিতে আসে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here