নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: নারায়ণগঞ্জ শহরে ফুটপাত যেন চিরচেনা এক রূপ। কালের বিবর্তনে ধারাবাহিক নিয়মেই চলছিল এই ফুটপাতে ব্যবসা। কিন্তু হঠাৎ যেন দু’দিনের মাইর্কিংয়ে পাল্টে গেছে দৃশ্যপট। উচ্ছেদ শিকারের ভয়ে হকাররা এখন ফুটপাত ছেড়ে অবস্থান করছেন অন্যত্র। যার ফলে হকার মুক্ত অন্যরকম এক নারায়ণগঞ্জ অবলোকন করছেন নগরবাসী।
মঙ্গলবার (১১ জুলাই) সরেজমিন নগরীর ডিআইটি থেকে চাষাড়া, ফলপট্টী থেকে চারারগোপ কালীর বাজার পর্যন্ত ঘুরে দেখা গেছে ফুটপাত হকারমুক্ত। কোথাও কোন ফুটপাতে নেই ব্যবসায়ীদের আনাগোনা। জনসাধানের চলাচলের স্থান ফুটপাত গুলো এতদিন হকারদের দখলে থাকলেও এখন সেই ফুটপাত চলে গেছে জনসাধারনেরই দখলে। চলার পথে নেই কোন বাঁধা, এ যেন ঝামেলা ছাড়াই বিরামহীন চলা।

নগরীতে চলাচলরত সাধারন পথচারী ফাঁকা ফুটপাতের বিষয়ে তাদের প্রতিক্রিয়ায় জানান, অনেকটা আরামে আয়েশে যাতায়াত করতে পারছি আমরা। কোথাও ফুটপাতে হকারদের দৌরাত্ম নেই। এভাবে থাকলে নগরী অনেকটা যানজট মুক্ত হবে। খুব কম সময়েই নির্দিষ্ট গন্তব্যে আমরা যাতায়াত করতে পারবো।

এখন দেখার বিষয় কতদিন থাকবে ফুটপাতমুক্ত নারায়ণগঞ্জ নগরী। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন কি পারবে এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে? নাকি আবারও নগরবাসী ফুটপাত ব্যবসায়ীদের কবলে পরবে? এমনই অনেক প্রশ্নের উদ্রেগ হচ্ছে সচেতন মহলের মনে।

প্রসঙ্গত, নগরীর ফুটপাতে আর না বসতে হকারদের শেষ বারের মত আল্টিমেটাম দিয়ে মাইকিং গত বৃহস্পতি ও রবিবার দু’দফা মাইকিং করে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন।

সতর্কীকরণ মাইকিংয়ে বলা হয়, সোমবার থেকে নগরীর ফুটপাতে হকার উচ্ছেদে অভিযান পরিচালনা করবে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ। সেলক্ষ্যে হকারদের মালামাল ফুটপাত থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার আহবান জানানো হয়। যদি এরপরেও কোন হকার ফুটপাতে দোকান বসানোর চিন্তা করেন তাহলে তার মালামাল বাজেয়াপ্ত করা হবে বলে হুঁশিয়ারী করা হয়।
যার ফলে হকাররা এখন ফুটপাতে আর দোকান বসানোর সাহস পাচ্ছেন না বলে জানান, একাধিক হকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here