নিউজ প্রাচ্যের ডান্ডি: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ ইউনেসকোর বিশ্বপ্রামাণ্য ঐতিহ্যের স্বীকৃতি উদযাপনে নারায়াণগঞ্জে বর্ণাঢ্য আনন্দ শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়াও ইসদাইর শামুসজ্জোহা স্টেডিয়ামে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও চলচ্চিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংঙ্গীত পরিচালনা করেছেন দেশের খ্যাতিমান কণ্ঠ শিল্পী ও মুক্তিযোদ্ধা ফকির আলমগীর। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ফকির আলমগীর প্রধান অতিথি সংসদ সদস্য সেলিম ওসমান ও জেলা প্রশাসককে মঞ্চে নিয়ে বাংলাদেশের পতাকা হাতে তুলে দিয়ে সম্মান জানান।

এ সময় সেলিম ওসমান অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত সকল মুক্তিযোদ্ধাদের মঞ্চে ডেকে নিয়ে যাওয়ার অনুরোধ করলে ফকির আলমগীর সবাইকে ডেকে মঞ্চে নিয়ে সম্মান প্রদর্শন করেন এ সময় ফকির আলমগীরে সাথে মুক্তিযোদ্ধের গানে কণ্ঠ মেলান মুক্তিযোদ্ধারা।

শনিবার (২৫ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টায় চাষাঢ়া গোল চত্ত্বর থেকে শোভাযাত্রাটি বের হয়ে প্রধান সড়ক হয়ে প্রেসক্লাব ঘুরে চাষাঢ়া শহীদ মিনারে এসে সমাপ্ত করে। শোভাযাত্রায় নারায়াণগঞ্জের বিভিন্ন স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী, সকল সরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী, শিক্ষক, মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামীলীগের জেলা ও মহানগরের বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশ নেন। এর আগে চাষাঢ়ায় বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

শোভাযাত্রা শেষে ইসদাইরে শামসুজ্জোহা স্টেডিয়ামে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠান ও চলচিত্র প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পূর্বে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে সেলিম ওসমান বলেন, আজকের দিনে মানুষ অডিওতে বঙ্গবন্ধুর দেওয়া ৭ মার্চের ভাষণ শুনেও রক্ত গরম হয়ে যায়, দেশপ্রেমে উদ্বৃত্ত হয়। একবার চিন্তা করে দেখুন ৭ মার্চের ভাষন আমরা যারা সরাসরি কাছ থেকে শুনেছি তখন আমাদের কি হয়েছে। তখন আমাদের যুদ্ধে যাওয়ার জন্য বাবার অনুমতির প্রয়োজন হয় নাই। একজন স্থানের তার মায়ের অনুমতির প্রয়োজন হয় নাই। সেই দিন আমরা যারা যুদ্ধে গিয়ে ছিলাম এদের মধ্যে আমরা যারা জীবিত হয়ে ফিরেছি তারা সবাই গাজী হয়েছি। এখন মাত্র হাতে গুনা কয়েকজন জীবিত আছে তাও চলে যাবে। কিন্তু আজকে ইউনেস্কো বঙ্গবন্ধুর সেই ভাষনকে যে সম্মান দিয়েছেন এরজন্য আমরা ইউনেস্কোর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আর এ সম্মানের মধ্য দিয়ে ওই ভাষনটি সারা পৃথিবীতে অমরা হয়ে থাকবে।

এ ব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার কমান্ডার শাহজাহান ভূইয়া জুলহাস জানান, আজকে এই দিনে আমরা অত্যন্ত আনন্দিত ও গর্বিত। এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম বঙ্গবন্ধুর এই আহবানে আমরা মুক্তিযুদ্ধে গিয়ে ছিলেন। সেই ভাষণ আজকে আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। স্বীকৃতি লাভের এই আনন্দ উদযাপনের দিনে আমাদেরকেও সম্মান জানানোয় আমরা আরো বেশি আনন্দিত।

শোভাযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ-৫ আসনের সংসদ সদস্য একেএম সেলিম ওসমান, সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য হোসেনে আরা বাবলী, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আব্দুল হাই, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন, জেলা প্রশাসক রাব্বী মিয়া, জেলা পুলিশ সুপার মঈনুল হক, , নারায়ণগঞ্জ চেম্বার অব কর্মাস এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি খালেদ হায়দার খান কাজল, মহানগর আওয়ামী লীগের সেক্রেটারী খোকন সাহা, সদর উপজেলার নির্বার্হী কর্মকর্তা তাহমিনা বিনতে শেখ, বিকেএমইএ এর সহ সভাপতি(অর্থ) জিএম ফারুক, পরিচালক ফারুক বিন ইউসুফ পাপ্পু, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সাজনু সহ বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here